12:33pm  Friday, 22 Mar 2019 || 
   
শিরোনাম



গোবিন্দগঞ্জে জাল দলিল তৈরি করে জমি দখলের পায়তারা ॥ পুলিশের হুমকি
২ মার্চ ২০১৯, ১৮ ফাল্গুন ১৪২৫, ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪০



গাইবান্ধা প্রতিনিধি ॥ গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার হরিরামপুর রামচন্দ্রপুর গ্রামের মৃত খলিল সরদারের পুত্র আব্দুর রহিম সরদার ও আব্দুল করিম সরদারের বিরুদ্ধে জাল দলিল তৈরি করে জমি দখলের পায়তারার অভিযোগ করেছে একই ইউনিয়নের পার্শ্ববর্তী ক্রোড়গাছা গ্রামের আলী আকবর। তিনি শনিবার গাইবান্ধা প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদে সম্মেলনে এ অভিযোগ করে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে প্রতিকার দাবি করেছেন।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, তার দাদা আব্দুল জলিল সরকারের নামে ১.৪০ (এক একর চলিশ) শতক কৃষি জমি (দাগ নং ৩৪৫১, ৩৫৭১, ৩৫৭২, আরএস খতিয়ান ১৬, জেএল নং ২০৪) রয়েছে। ১৯৬৯ সালে আব্দুল জলিল সরকারকে মারপিট করে তার দখলকৃত জমি ও দলিলপত্র কেড়ে নিয়ে খলিল সরদার নিজের বেআইনীভাবে দখলে নেয়। এরপর জাল দলিল তৈরি করে জমি খলিল সরদারের পুত্র রহিম সরদার, লুৎফর সরদার, করিম সরদার, জোহানুর সরদার, করিম সরদারের পুত্র হোসেন আলী সরদার, ফারুক সরদার এবং জ্ঞাতি-গোষ্ঠী প্রায় ৫০ ভোখদখল করে। পরে আব্দুল জলিল সরকারের পুত্র সোবাহান সরদার ও নাতি আলী আকবর সেটেলমেন্ট ও ভূমি অফিস থেকে আরএস এর সব কাগজপত্র তুলে ইউপি চেয়ারম্যানসহ এক বৈঠকের মাধ্যমে ওইসব বৈধ কাগজপত্র দেখিয়ে জমির দখল ফিরিয়ে নেয়। এরপর উক্ত ব্যক্তিরা পুনরায় জাল দলিল দেখিয়ে জমি দখলে নেয়ার চেষ্টা করে এবং আলী আকবরকে পুলিশ দিয়ে এবং মামলার মাধ্যমে হয়রানী করার হুমকি দেয়।  
এ ঘটনায় আলী আকবর গত ৭ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে অনলাইনে খতিয়ানের জন্য আবেদন করে। এরপর গত ১৪ জানুয়ারি জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের রেকর্ড রুমের অফিস সহকারী আব্দুল জলিল এর পরিবর্তে আব্দুল খলিলকে জমির মালিক দেখিয়ে একটি খতিয়ান প্রদান করে। এব্যাপারে তিনি ভলিয়ম দেখতে চাইলে তাকে ঘষামাঝা একটি ভলিয়ম বই দেখানো হয়। অনলাইনে খতিয়ানে দেখা যায় জমির মালিকানায় নামটি আব্দুল জলিলই রয়েছে। পরবর্তীতে আলী আকবর আবারও সিএস এবং আরএস খতিয়ানের জন্য ২১ জানুয়ারি ২টি আবেদন করে। গত ২৬ ফেব্র“য়ারি জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের রেকর্ড রুমের সহকারী হরিরামপুর ইউনিয়নের পিয়নের মাধ্যমে আরএস এবং সিএস খতিয়ান পাঠিয়ে দেয়। এরমধ্যে পূর্বে প্রদানকৃত ১৪ জানুয়ারির আরএস খতিয়ানের সাথে এই খতিয়ানের কোন মিল নেই। পরবর্তীতে ইউপি চেয়ারম্যান ও গ্রামের অন্যান্য ব্যক্তির উপস্থিতিতে একটি শালিস বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ওই বৈঠকে রহিম সরদার ও করিম সরদারের কাছে মূল দলিল দেখতে চাইলে তারা (দলিল নং ৩৪৩, সাল ১৯৫১) একটি ভুয়া জাল দলিল দেখান যা জাবেদা দলিলের সাথে আদৌও কোন মিল নাই। উক্ত রহিম সরদার ও করিম সরদার জমি দখলে নিতে পুলিশের ভয়ভীতি প্রদর্শন ও মামলা মোকদ্দমার ভয় দেখাচ্ছে বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়।

ফারুক হোসেন, গাইবান্ধা।

এই নিউজ মোট   2364    বার পড়া হয়েছে


দূর্ণীতি



বিজ্ঞাপন
ওকে নিউজ পরিবার
Shekh MD. Obydul Kabir
Editor
See More » 

প্রকাশক ও সম্পাদক : শেখ মো: ওবাইদুল কবির
ঠিকানা : ১২৪/৭, নিউ কাকরাইল রোড, শান্তিনগর প্লাজা (২য় তলা), শান্তিনগর, ঢাকা-১২১৭।, ফোন : ০১৬১৮১৮৩৬৭৭, ই-মেইল-oknews24bd@gmail.com
Powered by : OK NEWS (PVT) LTD.