05:15pm  Friday, 24 May 2019 || 
   
শিরোনাম
 »  না ফেরার দেশে চলে গেলেন সাংবাদিক শামীম রেজা !     »  ঠাকুরগাঁওয়ে গৃহবধু হত্যা মামলার ৩ আসামী আটক     »  সংবাদ সম্মেলন ও প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান     »  পলাশবাড়ীতে বিক্ষোভ সমাবেশ ও অবস্থান কর্মসূচী     »  ফুলছড়ির গজারিয়া ইউনিয়ন পরিষদের উন্মুক্ত বাজেট সভা     »  গাইবান্ধায় ‘সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের ভূমিকা’ শীর্ষক মতবিনিময় সভা     »  গাইবান্ধায় ক্রিকেট লীগ     »  গাইবান্ধায় জেলা প্রশাসনের ইফতার ও দোয়া মাহফিল     »  রংপুর সুগার মিলে শ্রমিক-কর্মচারীদের ‘ওভার টাইম’ কাজের ভাতা কর্তনের অভিযোগ     »  গোবিন্দগঞ্জে ধান কাটামাড়াই যন্ত্র কম্বাইন হারভেস্টার প্রদর্শনী ও কৃষক মাঠ দিবস   



সন্তানের স্বীকৃতি, সম্মান ও নিরাপত্তার জন্য এক নারীর সংবাদ সম্মেলন
২ মার্চ ২০১৯, ১৮ ফাল্গুন ১৪২৫, ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪০



শনিবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন ওই গৃহবধূ, আফরিনা সুলতানা মুক্তা কন্যাসন্তানের স্বীকৃতি এবং তার স্বামী ধর্মের লেবাসধারী বাংলাদেশ জুয়েলারি সমিতির জয়েন্ট সেক্রেটারি জয়নাল আবেদীনের বিচার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

লিখিত বক্তব্যে আফরিনা সুলতানা মুক্তা বলেন, আমি নারিন্দা এলাকায় থাকি। আমার স্বামী জয়নাল আবেদীন খোকন বাংলাদেশ জুয়েলারি সমিতির জয়েন্ট সেক্রেটারি। কিন্তু আজ ধর্মের লেবাসধারী প্রতারক স্বামীর চরমপ্রতারণার শিকার হয়ে নিঃস্ব হয়ে গেছি। আমার পরিবার, মান-সম্মান, টাকা, ব্যবসা, সব হাতিয়ে নিয়েছে। সর্বশেষ আমাদের একমাত্র কন্যাসন্তানকে অস্বীকার করে বিভিন্ন কুৎসা রটাচ্ছে। তবে সন্তানকে স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য আমার কাছে আরো ১০ কোটি টাকা দাবি করা হচ্ছে। তা না হলে সন্তানের স্বীকৃতি তো দিবেই না উল্টো আমাকে ও আমার শিশুসন্তানকেও প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হচ্ছে। এ থেকে রক্ষা পেতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তিনি।

তিনি বলেন, আমি একজন আধুনিকা স্বচ্ছল স্বর্ণের ব্যবসায়ী ছিলাম। পৈত্রিক সুত্রে এই ব্যবসা শুরু করি এবং সেই সুবাদে খোকনের সঙ্গে পরিচয় হয়। যেহেতু তিনি জামায়াতের একজন আমির এবং সুন্নতের লেবাসধারী ছিলেন। বিভিন্ন সময় ধর্মীয় ফতোয়া এবং ব্যবসায়িক ও পারিবারিক জীবন সম্পর্কে ধর্মীয় বিভিন্ন পরামর্শ ও আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে তার সঙ্গে একটা বিশ্বাস ও ভালোলাগার সম্পর্ক তৈরি হয়। একপর্যায়ে আমরা দুজন বিয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে বিষয়টি আমার বাবাকে জানালে বাবা তার সঙ্গে ১৫/২০ মিনিটের একটি বৈঠক করেন। এরপরই বাবা খোকনকে বিয়ে না করার জোর বিরোধিতা করেন।

কিন্তু আমি খোকনের ওপর এতটাই বিশ্বাসী ছিলাম যে, কোনো চিন্তা না করে সব বাধা উপেক্ষা করে তাকে বিয়ের সিদ্ধান্ত নিই। যেহেতু খোকনের ভাষ্যমতে তাদের বাবা ভাই জয়েন্ট বিজনেস। কিন্তু তার কাছে কোনো টাকা নাই তাই বিয়ের পরবর্তী বাসস্থানের জন্য আমি তাকে এক কোটি টাকা যৌতুক দিয়ে মাত্র ১০১ টাকা কাবিনে বিয়ে করি। যে বিয়েতে কবুল বলতে খোকন ১ লাখ টাকা নেয়। কিন্তু বিয়ের কিছুদিন পরে আমি গর্ভবর্তী হয়ে পড়লে খোকনের নিষ্ঠুর রূপ আমার সামনে আসতে থাকে। তার প্রথম স্ত্রী ও পরিবারের লোকদের পরামর্শ ও পরিকল্পিতভাবে অসুস্থ অবস্থায় আমাকে বাবার বাড়িতে পাঠিয়ে আমার সতভাই-বোনদের সাথে মিলে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করে। একপর্যায়ে আমার পেটের সন্তান নষ্ট হয়ে যায়।

আমি খোকনের এহেন চরিত্রে ঘৃণা হতে বিয়ের ৬ মাসের মাথায় তাকে তালাক প্রদান করি। কিন্তু খোকন বলে তার পরিবারের লোকদের ষড়যন্ত্র ও তাবিজ-কবজের জন্য তিনি এমন নিষ্ঠুর ব্যবহার করেছেন। ধর্মের দোহাই দিয়ে আমার কাছে ক্ষমা চেয়ে ২ মাস পর পুনরায় আমাকে আবার বিয়ে করেন।

তিনি আরো বলেন, বিয়ের ৬-৭ মাস পর আমি গর্ভবতী হই। এরপর অসুস্থ অবস্থায় পরিচয় গোপন করে তার প্রথম স্ত্রী গাড়িচালককে আমার দেখা শোনার জন্য নিয়োগ করে। কিছুদিন পরেই আমার পুনরায় গর্ভপাত হলে খোকনের অমানবিক ও অশোভন আচারণে আমি দিশেহারা হয়ে যাই।

আফরিনা সুলতানা মুক্তা বলেন, ২০১৮ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি আমার কন্যাসন্তানের জন্মের পর থেকে আবারও খোকনের নিষ্ঠুর পরনারীলোভী ও অর্থলোভী চরিত্র আরো প্রকাণ্ডরূপে প্রকাশিত হয়। আমাকে শারীরিক, মানসিক ও অার্থিকভাবে অত্যাচার শুরু করেন। সমাজে আমার বাচ্চাকে অস্বীকার করেন। একপর্যায়ে খোকন আমাকে সন্তানের কথা বলে ব্লাকমেইল করে আমার অ্রাকাউন্টে থাকা সবশেষ ২০ লাখ টাকাও তুলে নেয়। তারপর থেকে আমার ও আমার সন্তানের খোঁজ-খবর নেওয়া বন্ধ করে দেয়। শুধু তাই নয় টাকা-পয়সা নেওয়ার পর থেকে খোকন বিভিন্ন মহলে বলে বেড়ায় ওই বাচ্চা তার নয়। আমি প্রতিবাদ করলে আমাকে প্রচণ্ড মারধর ও ১০ কোটি টাকা দিলে বাচ্চার বৈধতা স্বীকার করবেন বলে হুমকি দেয়। এ সময় বাধ্য হয়ে আমি আদালতের শরণ নিই। তার পর খোকন ও তার প্রথম পক্ষের বড় ছেলে আমাকে ও আমার বাচ্চাকে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। কিন্তু খোকন প্রচণ্ড ক্ষমতাশালী এবং এলাকার প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় থাকায় তার সঙ্গে আমি পেরে উঠছি না।

আফরিনা সুলতানা মুক্তা জানান, বর্তমানে তিনি খুবই অনিশ্চিত, অসম্মানি ও নিরাপত্তাহীনতায় তার দুগ্ধপোষ্য কন্যাসন্তানকে নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। তিনি ও তার সন্তানের জীবনের নিরাপত্তা ও সন্তানের পিতার
স্বীকৃতির জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।


এই নিউজ মোট   876    বার পড়া হয়েছে


শিশু অধিকার



বিজ্ঞাপন
ওকে নিউজ পরিবার
Shekh MD. Obydul Kabir
Editor
See More » 

প্রকাশক ও সম্পাদক : শেখ মো: ওবাইদুল কবির
ঠিকানা : ১২৪/৭, নিউ কাকরাইল রোড, শান্তিনগর প্লাজা (২য় তলা), শান্তিনগর, ঢাকা-১২১৭।, ফোন : ০১৬১৮১৮৩৬৭৭, ই-মেইল-oknews24bd@gmail.com
Powered by : OK NEWS (PVT) LTD.