03:05pm  Monday, 22 Apr 2019 || 
   
শিরোনাম



বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে দেশের জন্য অস্ত্র হাতে নিয়ে লড়াই করি
২৫ মার্চ ২০১৯, ১১ চৈত্র ১৪২৫, ১৭ রজব ১৪৪০



সিলেট ব্যুরো : ‘১৯৭১ সালের ২৫শে মার্চ কালরাতে পাকহানাদার বাহিনী যখন এদেশের ঘুমন্ত মানুষের উপর নির্বিচারে গুলি চালিয়ে হত্যাযজ্ঞ মেতে উঠে তখন বাঙালী মুক্তিকামী জনতা ঘরে বসে থাকতে পারেনি। ১৮ বছরের উঠতি বয়সের বাঙালী যুবক হিসেবে স্বাভাবিকভাবেই গণহত্যার বিরুদ্ধে জেগে উঠি। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে ও দেশমাতৃকার টানে অস্ত্র হাতে নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ি মুক্তিযুদ্ধে। দেশের জন্য প্রাণপণ লড়াই করি।

মুক্তিযুদ্ধের মাঝামাঝি সময়ে ১লা আগষ্ট ভোর রাতে জৈন্তা-দরবস্ত এলাকায় পাকহানাদার বাহিনীর সাথে সম্মুখযুদ্ধে অবতীর্ণ হই। প্রায় দেড় ঘন্টা যুদ্ধ চলাকালীন পূব-আকাশ লাল হয়ে সূর্যোদয় হবে এমন সময় শত্রুর একটি মর্টার-শেল আমার পায়ে আঘাত হানে। সাথে সাথেই মাটিতে লুটিয়ে পড়ি। সহযোদ্ধারা আমাকে কাঁধে নিয়ে উদ্ধার করলে প্রাণে বেঁচে যাই।’ কথাগুলো বলছিলেন- ৬৬ বছরের বৃদ্ধ অলিউর রহমান। তিনি একজন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা। কানাইঘাট উপজেলার কাড়াবাল্লা নিজ গ্রামের মৃত মুবাশীর আলীর পুত্র।


সোমবার এ প্রতিবেদকের সাথে সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, পাকসেনাদের আঘাতে মর্টারশেলের আঘাতে গুরুতর আহত হলেও সরে দাঁড়াননি যুদ্ধের ময়দান থেকে। ভারতের শিলচরের মাছিমপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে ডা. জয়ন্ত দত্তের অধীনে ২রা আগষ্ট থেকে ২৯ আগষ্ট পর্যন্ত চিকিৎসা নিয়ে পুণরায় যুদ্ধে অংশ নেন। দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী সংগ্রাম করে দেশ স্বাধীন করে নিজেকে  গর্বিত মনে করেন।

তিনি আরও জানান, যুদ্ধচলাকালীন সময়ে ৪নং সেক্টরের অধীনে সিলেটের বিভিন্ন স্থানে যুদ্ধ করেছেন। ৪নং সেক্টর কমান্ডার মেজর জেনারেল (অব:) সি.আর দত্ত ও সাব-সেক্টর কমান্ডার মাহবুবুর রব সাদি’র রণকৌশল নিয়ে কানাইঘাট সদর, চতুল বাজার, জকিগঞ্জ সদর, আটগ্রাম, জৈন্তাপুর উপজেলার দরবস্ত এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানে যুদ্ধ করেছেন। যুদ্ধের মাঝামাঝি সময়ে শত্রুর আঘাতে মারাত্মক আহত হলে  প্রাথমিক চিকিৎসা ভারতে নিয়ে পুণরায় যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে ২৮ ডিসেম্বর সিলেট সদর হাসপাতাল (তৎকালীন সিলেট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল)-এ ভর্তি হন।

অধ্যাপক কবির উদ্দিন আহমদের অধীনে ১৭ জানুয়ারী পর্যন্ত চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেন। তাঁর যুদ্ধাহত কার্ড নং- ১৭৮৫, রেজি. নং-১৮১৩, লাল মুক্তিবার্তা নং-৫০১০৬০১৪৭, বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধা যুদ্ধাহত গেজেট নং-২১৪৩, ভারতীয় তালিকা-২৩৭৫৮, বেসামরিক গেজেট- ৪১৬১। কিন্তু শেষ বয়সে এসে অলিউর রহমান নানা সমস্যায় তাকে ঘিরে ফেলেছে। ঘর-বাড়ি নির্মাণ, ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়ার খরচ ও সংসার চালাতে গিয়ে আজ নানামুখী সমস্যায় জর্জড়িত। মুক্তিযুদ্ধার যে ভাতা পান, তা দিয়ে সংসারে দু’মুঠো ভাত জুটলেও অন্যান্য প্রয়োজন মেটাতে হিমশিম খেতে হয়। আবেগপ্রবণ কণ্ঠে যুদ্ধাহত মুক্তিযুদ্ধা অলিউর রহমান বলেন, সমরযুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন হলেও নিজের ভাগ্য বদলাতে পারেননি।


কাওছার আহমদ
সিলেট ব্যুরো

এই নিউজ মোট   12528    বার পড়া হয়েছে


মুক্তিযুদ্ধ



বিজ্ঞাপন
ওকে নিউজ পরিবার
Shekh MD. Obydul Kabir
Editor
See More » 

প্রকাশক ও সম্পাদক : শেখ মো: ওবাইদুল কবির
ঠিকানা : ১২৪/৭, নিউ কাকরাইল রোড, শান্তিনগর প্লাজা (২য় তলা), শান্তিনগর, ঢাকা-১২১৭।, ফোন : ০১৬১৮১৮৩৬৭৭, ই-মেইল-oknews24bd@gmail.com
Powered by : OK NEWS (PVT) LTD.