03:06pm  Monday, 22 Apr 2019 || 
   
শিরোনাম



সৎ মা ও নানীর নির্যাতনে শিশুটির সারা শরীর দগ্ধ, হাসপাতালে শিশু
১ এপ্রিল ২০১৯, ১৮ চৈত্র ১৪২৫, ২৪ রজব ১৪৪০



শিশুটির নাম সেতু আক্তার (১০)। সে মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার কবিরাজপুর ইউনিয়নের পান্থাপাড়া গ্রামে রিয়াজ শিকদারের মেয়ে ও কালামৃধা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী। সেতুর বাবা রিয়াজ ঢাকায় ভাঙারির ব্যবসা করেন।

সৎ মা ও নানীর নির্যাতনে শিশুটির সারা শরীর দগ্ধ। হাত, পা ঘাড়সহ শরীরের বিভিন্ন অংশে ক্ষত। শরীরের কয়েকটি স্থানে ঘাঁ হয়ে গেছে। ভয়ে বাবাকে কিছুই বলতো না শিশুটি। স্থানীয় এক মানবাধিকার কর্মী ও পুলিশের সহযোগিতায় বর্তমানে তাকে উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া নিচ্ছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, প্রায় ৯ বছর আগে সেতুর মা রেহানা বেগম মারা যান। সেতুর মা জীবিত থাকতেই তার বাবা সাবিনা বেগম নামের একজনকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর থেকে সেতুকে প্রায়ই মারধর করতেন তিনি। গত এক বছর ধরে সৎ নানীর প্ররোচনায় নির্যাতনের মাত্রা বেড়ে যায়। গত ২৪ মার্চ সেতু এক গ্লাস দুধ খেতে চাওয়া সৎ মা আর নানী মিলে গরম খুন্তি দিয়ে তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছ্যাঁকা দেয়। সে যন্ত্রনায় চিৎকার করতে থাকলে আবারও ছ্যাঁকা দেওয়া হয়। এই নির্যাতনের বিষয়ে জানতে পারেন স্থানীয় মানবাধিকার কর্মী মমতা খাতুন। এরপর তিনি সেতুকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে চিকিৎসা দেন এবং বিষয়টি পুলিশকে জানান। পরে পুলিশ সেতুর বাড়িতে গিয়ে তার সৎ ভাই ছাব্বির (১৪) ও সৎ মা সাবিনা বেগমকে (৪০) আটক করে এবং সেতুকে উদ্ধার করে রাজৈর উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

চিকিৎসাধীন সেতু জানায়, সৎ নানীর প্ররোচনায় সৎ মা কারণে-অকারণে তার শরীরে গরম খুন্তি দিয়ে ছ্যাঁকা দিত। যন্ত্রনায় চিৎকার করলেও আরো বেশি কষ্ট দিত। বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার ভয়ে সে কাউকে কিছু বলতো না।

মানবাধিকার কর্মী মমতা খাতুন বলেন, আমি লোকজনের মুখে বিষয়টি শুনে ওর বাড়িতে গিয়ে ওর সৎ মাকে বোঝানোর চেষ্টা করি। তিনি কিছুই বুঝতে চাচ্ছিলেন না। পরে আমি শিশুটির তাৎক্ষণিক চিকিৎসা ব্যবস্থা করি ও পুলিশকে বিষয়টি খুলে বলি।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার মণ্ডল বলেন, শিশুটির শরীরের ৫টি স্থানে গরম খুন্তির ছ্যাঁকা রয়েছে। তার ঘাড়ে, হাতে ও পায়ে ক্ষত রয়েছে। আমরা তার যথাযথ চিকিৎসা নিশ্চিত করেছি। আশা করছি সে দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবে।

রাজৈর থানার উপ-পরিদর্শক খান মো. জোবায়ের বলেন, গত ২৪ মার্চ রাতে শিশুটি সৎ মা ও তার সৎ নানী কর্তৃক শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়। কিন্তু আমরা তখন এ ঘটনার খবর পাইনি। শনিবার রাতে খবর পেয়ে রোববার সকালে শিশুটি বাড়ি গিয়ে তাকে উদ্ধার করি। এরপর রোববার রাতে শিশুটির সৎ মা ও তার সৎ ভাইকে আটক করি। শিশুটির সৎ নানীকে পলাতক আছেন। এ বিষয় থানায় মামলা করা হয়েছে।

রাজৈর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহানা নাসরিন বলেন, মেয়েটি যদি চায় তবে আমরা তার পুনর্বাসনের যাবতীয় ব্যবস্থা নেবো।


এই নিউজ মোট   648    বার পড়া হয়েছে


শিশু নির্যাতন



বিজ্ঞাপন
ওকে নিউজ পরিবার
Shekh MD. Obydul Kabir
Editor
See More » 

প্রকাশক ও সম্পাদক : শেখ মো: ওবাইদুল কবির
ঠিকানা : ১২৪/৭, নিউ কাকরাইল রোড, শান্তিনগর প্লাজা (২য় তলা), শান্তিনগর, ঢাকা-১২১৭।, ফোন : ০১৬১৮১৮৩৬৭৭, ই-মেইল-oknews24bd@gmail.com
Powered by : OK NEWS (PVT) LTD.