12:28am  Wednesday, 17 Jul 2019 || 
   
শিরোনাম
 »  রিফাত হত্যায় সংশ্লিষ্টতা পাওয়ায় মিন্নিকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে     »  চ্যানেল আইতে ১৭ জুলাই, বুধবারে যা দেখবেন     »  ভোলাহাটে চূড়ান্ত বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট অনুষ্ঠিত     »  ঝালকাঠিতে মুক্তিযোদ্ধার বাড়ীতে ডাকাতির ঘটনায় পুলিশ সুপারের ঘটস্থল পরিদর্শন     »  মিয়ানমারকে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান     »  লোভ দেখিয়ে আত্মসাৎ করেছেন ৩০০ কোটি টাকা     »  অধ্যাপক ফারুক একজন স্ট্যান্ডার্ড মানের গবেষক     »  সুষ্ঠু তদন্তের জন্য মিন্নিকে বাসা থেকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে     »  আগামীকাল বুধবার এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ     »  পরিকল্পিতভাবেই এবারের জন্মদিনটা কাটাচ্ছেন ক্যাটরিনা!   



গোবিন্দগঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য বরাদ্দকৃত উন্নয়ন পরিকল্পনার টাকা ব্যয়ে অনিয়মের অভিযোগ
১০ জুলাই ২০১৯, ২৬ আষাঢ় ১৪২৬, ০৬ জিলকদ ১৪৪০



গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য বরাদ্দকৃত বিদ্যালয় ভিত্তিক উন্নয়ন পরিকল্পনা (স্লিপ) এর টাকা বিধিবহিভূত ভাবে ব্যায়ের পায়তারা চলছে। এতে করে অনেক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।


উপজেলার ১৭ টি ইউনিয়ন ও  ১টি পৌর সভায়  মোট ২শ ৭০ টিসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর  আধিক্য বিবেচনা করে ৫১টি বিদ্যালয়ের ৭০ হাজার টাকা ও ২শ’ ১৯ টি বিদ্যালয়ের ৫০ হাজার টাকা স্কুল লেভেল ইমপ্রভমেন্ট  প্লান (স্লিপ) এর টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। বিধিমালা অনুযায়ী স্লিপের টাকা দিয়ে শুধু মাত্র বিদ্যালয় ও শিক্ষার উন্নয়নে কাজ করা যাবে। কিন্তু উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নির্দেশনা দিয়েছেন স্লিপের টাকা থেকে ২৫ হাজার একটি ভ্উাচার দিতে হবে বায়োমেট্রিক মেশিন ক্রয় বাবদ। এতে করে শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সদস্যদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। অনেকের অভিমত বিদ্যালয় ও শিক্ষারমান্নোনয়নে  সরকারের দেয়া অর্থ অন্যখাতে ব্যায় করা উদ্দেশ্য প্রনোদিত। প্রতিটি বিদ্যালয়ে ল্যাপট্যাপ সহ অন্যান্য সামগ্রী সরকারীভাবে প্রদান করা হয়েছে। প্রয়োজনে সরকার নিজেই বায়োট্রেক মেশিনও প্রদান করবে। স্লিপের টাকা থেকে বায়োমেট্রিক ক্রয় অযৌতিক। অন্য দিকে বায়োমেট্রিক মেশিন পরিচালনার ক্ষেত্রে ইন্টারনেটের সংযোগ দরকার। সে ক্ষেত্রে বায়োমেট্রিক মেশিন পরিচালনার ক্ষেত্রে যে ইন্টারনেট ব্যাবহারে যে ব্যায় হবে তা কোন খাত থেকে আসবে তারও উল্লেখ নেই। এনিয়ে শিক্ষকরাও বেশ শংকিত এই ভেবে যে শেষে আবার মাস শেষে ইন্টারনেটের টাকাও আবার তাকে পকেট থেকে দিতে হবে কিনা। আর যদি ইন্টারনেট অভাবে বায়োমেট্রিট অচল হয়ে পরে থাকে তবে তা ক্রয় করে লাভ কি


চালিতা বেসাইন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিলকিস বানু এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, শিক্ষা অফিসের নির্দেশনা মোতাবেক বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভা করে বায়োমেট্রিক মেশিন ক্রয় বাবদ ২৫ হাজার টাকা ভাউচার প্রদান করা হয়েছে।

 অন্যাদিকে কৌচাকৃষ্ণপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ময়না বলেন, বায়োমেট্রিক পরিচালনা সম্পর্কে  আমার কোন ধারণা নেই যেহেতু শিক্ষা অফিস থেকে নিদের্শ রয়েছে সেহেতু ২৫ হাজার টাকার ভাউচার দাখিল করেছি।


সাহেবগঞ্জ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি শাহ আলম জানান, তার বিদ্যালয়ের স্লিপ থেকে ৫০ হাজার টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। যার সিংহভাগ বায়োমেট্রিক ক্রয়বাবদ চলে যাচ্ছে। এরপর  মূল টাকার ভ্যাট কর্তন করে যে  ১৪/১৫ হাজার টাকা থাকবে তা দিয়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষার মানোন্নয়নে কার্যক্রম, শিখন সামগ্রী ক্রয় ও মা সমাবেশ করা সম্ভব নয়।  


বায়োমেট্রিক ক্রয়ের ব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার  আব্দুল হামিদ সরকার বলেন, স্লিপের বিধিমালা অনুযায়ী বায়োমেট্রিক মেশিন ক্রয়ের ব্যাপারে কোন নির্দেশনা  নেই। তবে শিক্ষামন্ত্রণালয় ও অধিদপÍরে এক চিঠিতে স্লিপের অর্থ থেকে ভালো মানের বায়োমেট্রিক মেশিন ক্রয়ের  অনুমোতি দিয়েছে।


ফারুক হোসেন

গাইবান্ধা।

এই নিউজ মোট   480    বার পড়া হয়েছে


দূর্ণীতি



বিজ্ঞাপন
ওকে নিউজ পরিবার
Shekh MD. Obydul Kabir
Editor
See More » 

প্রকাশক ও সম্পাদক : শেখ মো: ওবাইদুল কবির
ঠিকানা : ১২৪/৭, নিউ কাকরাইল রোড, শান্তিনগর প্লাজা (২য় তলা), শান্তিনগর, ঢাকা-১২১৭।, ফোন : ০১৬১৮১৮৩৬৭৭, ই-মেইল-oknews24bd@gmail.com
Powered by : OK NEWS (PVT) LTD.