09:57pm  Sunday, 18 Aug 2019 || 
   
শিরোনাম



গাইবান্ধায় সবজি আমন বীজতলা আউশ ধানসহ ৯২ কোটি টাকার ফসলের ক্ষতি
৩ আগস্ট ২০১৯, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৬, ১ জিলহজ ১৪৪০



গাইবান্ধা প্রতিনিধি ॥ বন্যার পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথেই গাইবান্ধার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার কৃষকরা চরম বিপাকে পড়েছে। কেননা বন্যাকালি জমিতে বিদ্যমান ফসল, শাকসবজি, আমন ধানের বীজতলা এবং আউশ ধানের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তদুপরি চরা লের জমিগুলোতে বালু জমে চাষাবাদের অনুপোযোগি হয়ে পড়েছে। ফলে কৃষকরদেরকে ক্ষতিগ্রস্ত জমিতে চাষাবাদ করতে নতুন করে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখিন হতে হচ্ছে। এমতাবস্থায় বন্যা পরবর্তী কৃষি পুনর্বাসন কর্মসূচির আওতায় সরকারি সহায়তা না পেলে বন্যা দুর্গত এলাকার দরিদ্র ও মধ্যবিত্ত কৃষক পরিবারগুলো চরম দুর্ভোগের কবলে পড়বে।


কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সুত্রে জানা গেছে, এবারের ভয়াবহ বন্যায় গাইবান্ধায় কৃষিক্ষেত্রে মারাত্মক বিপর্যয় হয়েছে। জেলায় হাজার হাজার হেক্টর জমির ফসল বানের পানিতে তলিয়ে গেছে। ফলে দীর্ঘদিন ফসলী জমি পানির নিচে তলিয়ে থাকায় এসব ক্ষেতের ফসল বিনষ্ট হয়ে গেছে। কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের দেয়া তথ্য অনুযায়ী এবারের বন্যায় জেলায় ১৪ হাজার ২১ হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এরমধ্যে ৫ হাজার ৫২০ হেক্টর জমির ফসল সম্পুর্ণ রূপে এবং ৮ হাজার ৫০১ হেক্টর জমির ফসল আংশিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। টাকার অংকে এ ক্ষতির পরিমাণ ৯২ কোটি ১ লাখ ১৭ হাজার।

বন্যায় চরা লে রোপিত আউশ ধানের ক্ষেতের ক্ষতি হয়েছে সবচেয়ে বেশী। বিলুপ্ত প্রায় এ ধান চাষে কৃষকদের উৎসাহিত করার লক্ষ্যে কৃষকদের কৃষি প্রনোদনা দেয়া হয়। প্রনোদনা হিসাবে প্রায় ৬০ লাখ টাকার উন্নত জাতের বীজ ও সার বিতরণ করা হয়। এবারে জেলায় ১০ হাজার হেক্টর জমিতে আউশ ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নেয়া হলেও প্রনোদনার কারণে জেলায় লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে আউশ ধানের চাষ হয়েছে ১০ হাজার ৮৫৩ হেক্টর জমিতে। এরমধ্যে ৯ হাজার ৮৩৫ হেক্টরে উফশী জাতের এবং ১৬৫ হেক্টর স্থানীয় জাতের আউশ ধানের চাষ করা হয়। এবারে আউশ চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নেয়া হয়েছিল ২৭ হাজার ২৮৫ মে. টন।  উৎপাদনের এ লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বন্যায় কৃষকদের সেই আশা ধুলিসাৎ হয়ে গেছে।


আউশ ধান ছাড়াও এবারের ভয়াবহ বন্যায় ৬ হাজার ৬১৯ হেক্টর জমির পাট, ২ হাজার ৮৮১ হেক্টর জমির রোপা আমন বীজতলা, ৩১ হেক্টরের রোপা আমন, ১ হাজার ১৭৭ হেক্টরের শাকসবজি, ৩ হেক্টরের পান বরজ ও ১২০ হেক্টর জমির অন্যান্য ফসলের ক্ষতি হয়েছে।

ফসলের এ ব্যাপক ক্ষতি পুষিয়ে নিতে কৃষি বিভাগ কি কি পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে সেব্যাপারে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ এসএম ফেরদৌস জানান, এ ক্ষতি পুষিয়ে নিতে একশ’ একর জমিতে আমন বীজতলা স্থাপন করা হবে। এসব বীজতলা বিনামূল্যে কৃষকদের মধ্যে বিতরণ করা হবে। এছাড়া ফুলছড়ি ও সাঘাটা উপজেলায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের মধ্যে ৫ কেজি করে উন্নত জাতের আমন বীজ ধান দেয়া হবে, যা দিয়ে কৃষকরা নিজেরাই বীজতলা স্থাপন করতে পারবে। এছাড়া কৃষি পুনর্বাসনের জন্য অধিদপ্তরের কাছে পোস্তাবনা পাঠানো হয়েছে বলে তিনি জানান।


ফারুক হোসেন
গাইবান্ধা।

এই নিউজ মোট   420    বার পড়া হয়েছে


কৃষি



বিজ্ঞাপন
ওকে নিউজ পরিবার
Shekh MD. Obydul Kabir
Editor
See More » 

প্রকাশক ও সম্পাদক : শেখ মো: ওবাইদুল কবির
ঠিকানা : ১২৪/৭, নিউ কাকরাইল রোড, শান্তিনগর প্লাজা (২য় তলা), শান্তিনগর, ঢাকা-১২১৭।, ফোন : ০১৬১৮১৮৩৬৭৭, ই-মেইল-oknews24bd@gmail.com
Powered by : OK NEWS (PVT) LTD.