11:25pm  Saturday, 19 Oct 2019 || 
   
শিরোনাম



৫ দিনের রিমান্ডে বুয়েট ছাত্রলীগের ১০ নেতা-কর্মী
৮ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার। ২৪ আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ। ৮ সফর ১৪৪১



নিজস্ব প্রতিবেদক:  বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের ১০ নেতা-কর্মীকে পাঁচ দিন করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দিয়েছেন আদালত। পুলিশের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আজ মঙ্গলবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত এই আদেশ দেন। এর আগে পুলিশ এই ১০ জনকে আদালতে হাজির করে ১০ দিন করে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করে।

রাষ্ট্রপক্ষ থেকে আদালতকে বলা হয়, বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছেন এই ১০ আসামি। তাঁরা ঠান্ডা মাথায় খুন করেছেন। এই ১০ আসামি যে আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় জড়িত, তা ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা আদালতকে আরও বলেন, তাঁরা ছাত্র নামের কলঙ্ক। আবরার ফাহাদকে হত্যা করার পর বীরদর্পে ঘুরেছেন। ডাক্তারও ডাকেননি। তাঁরা সবাই খুনি।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী হেমায়েত উদ্দিন খান আদালতে বলেন, একজন সহপাঠী আরেকজন সহপাঠীকে এমন নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করতে পারেন? আবরার ফাহাদের কী দোষ ছিল? তাঁরা খুনি। এই খুনের রহস্য উদ্‌ঘাটনের জন্য প্রত্যেক আসামিকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা জরুরি।

অন্যদিকে, এই মামলায় গ্রেপ্তার ১০ জন বুয়েটছাত্রের মধ্যে দুজনের আইনজীবী আদালতে যুক্তি তুলে ধরেন। আসামি ইশতিয়াক আহমেদের আইনজীবী হুমায়ুন কবির আদালতের কাছে দাবি করেন, আবরার ফাহাদ হত্যায় তাঁর মক্কেল কোনোভাবেই জড়িত ছিলেন না। তাঁকে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন নাকচ করে জামিন দেওয়া হোক। আদালত উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে আবরার হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের ১০ নেতা-কর্মীকে পাঁচ দিন করে রিমান্ডে নেওয়ার অনুমতি দেন।

পুলিশ বলছে, মামলার এজাহারভুক্ত ১০ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। আবরার হত্যার ঘটনায় গতকাল সকালে বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফুয়াদ হোসেনকে আটক করা হয়। দুপুরের পর পুলিশ এই হত্যার ঘটনায় আটক করে ছাত্রলীগের নেতা অনীক সরকার, মেফতাহুল ইসলাম, ইফতি মোশারেফ, বুয়েট ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান ওরফে রবিন, গ্রন্থ ও প্রকাশনা সম্পাদক ইশতিয়াক আহমেদ ওরফে মুন্না, ছাত্রলীগের সদস্য মুনতাসির আল জেমি, খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম ওরফে তানভীর ও মোহাজিদুর রহমানকে।

আবরার বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (১৭তম ব্যাচ) ছাত্র ছিলেন। তিনি থাকতেন বুয়েটের শেরেবাংলা হলের নিচতলায় ১০১১ নম্বর কক্ষে। গত রোববার রাতে আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করেন বুয়েট ছাত্রলীগের একদল নেতা-কর্মী। আবরার হত্যার ঘটনায় গতকাল রাতে ১৯ জনকে আসামি করে তাঁর বাবা বরকত উল্লাহ ঢাকার চকবাজার থানায় মামলা করেছেন।
আবরারকে হত্যার কথা স্বীকার করলেন তারা
এই নিউজ মোট   576    বার পড়া হয়েছে


আইন-আদালত



বিজ্ঞাপন
ওকে নিউজ পরিবার
Shekh MD. Obydul Kabir
Editor
See More » 

প্রকাশক ও সম্পাদক : শেখ মো: ওবাইদুল কবির
ঠিকানা : ১২৪/৭, নিউ কাকরাইল রোড, শান্তিনগর প্লাজা (২য় তলা), শান্তিনগর, ঢাকা-১২১৭।, ফোন : ০১৬১৮১৮৩৬৭৭, ই-মেইল-oknews24bd@gmail.com
Powered by : OK NEWS (PVT) LTD.