12:29am  Thursday, 24 Sep 2020 || 
   
শিরোনাম
 »  ২৪ সেপ্টেম্বর; আজকের দিনে জন্ম-মৃত্যুসহ যত ঘটনা     »  অস্ট্রেলিয়ার সমুদ্রসৈকতে প্রায় ৪০০ পাইলট তিমি মারা গেছে     »  শিবগঞ্জের যত খবর     »  গাইবান্ধায় বিল্ডিং ভাঙ্গার সময় দেয়াল চাপা পড়ে নির্মান শ্রমিক সহ ২ জন নিহত     »  কিশোরগাড়ী ৫ ও ৩ নং ওয়ার্ড কৃষকলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত।     »  গোবিন্দগঞ্জে অবাধভাবে পুকুর খনন ৪০ টি পরিবারের ভোগান্তি সীমা নেই     »  ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার চ্যানেল অঅইতে দেখবেন     »  কালীগঞ্জে প্রতিবন্ধী কিশোরকে বলৎকার, থানায় মামলা     »  যত্রতত্র নির্মাণ বন্ধে মাস্টারপ্ল্যান করে রাস্তা নির্মাণ করা হবে     »  সৌদি প্রবাসীদের আন্দোলন না করাই ভাল   



প্রধানমন্ত্রী রাতুলকে দেখে চমকে গেলেন
২৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৪ পৌষ ১৪২৬, ১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১



রাতুল এসেছিল তার বাবার সঙ্গে। হাতে শ্রেষ্ঠ গায়ক হিসেবে পাওয়া ক্রেস্টটা দেখে রাতুলকে বললাম যে গানের জন্য সেরা গায়ক হলে, সে গানের দুই লাইন শোনাও তো দেখি। রাতুল সুরেলা কণ্ঠে বলে উঠল-

 যদি দুঃখ ছুঁয়ে দেখো,

 তুমি বুঝবে, আমায় জানি

 যদি দুঃখ ছুঁয়ে দেখো,

 তুমি বুঝবে, আমায় জানি

 কেন আড়াল হয়ে থাকি,

 কেন এতটা সাবধানী

 যদি দুঃখ ছুঁয়ে দেখো,

 তুমি বুঝবে, আমায় জানি।

সরাসরি গান শুনলে দলছুটের বন্ধুরাও মুগ্ধ হতো তা আমি বলতে পারি জোর দিয়ে। রাতুলের গলায় জাদু আছে তাতে সন্দেহ নেই।

গানের অ আ ক খ: ছোটবেলা থেকেই বড় বোনকে গান শিখতে দেখেছে। তখনই ঝোঁক চাপে গান শেখার। ওর আগ্রহ দেখে মা-বাবা চার বছর বয়সেই গান শেখার জন্য ওস্তাদ সানি মাহমুদ শাহিনের কাছে ভর্তি করেন রাতুলকে। এখন তাঁর কাছেই গানের তালিম নিচ্ছে পুরোদমে। রাতুলের বয়স ১৩ হলেও গান শেখার বয়স কিন্তু ১০ ছুঁই ছুঁই।

চ্যানেল আই ক্ষুদে গানরাজ: রাতুলের শৈশব কেটেছে খুলনায়। খুলনায়ই জন্ম এই খুদে গায়কের। বাবার কাছে জানতে পারে, খুলনা বিভাগের অডিশন হবে। গানও শিখছে, গাইতেও পারে ভালো, তাই মা-বাবা রেজিস্ট্রেশন করে ফেলেন, তারপর তো মহাকাণ্ড। একে একে সব ধাপ অতিক্রম করে সেরা তিনে জায়গা করে নেয় খুদে গায়ক। বলল, আমি ২০১২ সালে নজরুলগীতিতে জাতীয় পুরস্কার পাই। তাই মনে একটা সাহস ছিল, ভালো কিছু করতে পারব, সেখান থেকেই শুরু। প্রতিটি পর্বেই নিজেকে প্রমাণ করার চেষ্টা করেছি, মনে মনে কল্পনা করেছি এটাই ফাইনাল। আমাকে জয়ী হতে হবে। আমি মনে করি, আমার সবচেয়ে বড় টার্নিং পয়েন্ট ক্ষুদে গানরাজে তৃতীয় হওয়া। সেখান থেকে শ্রোতারা চিনতে পারে এবং আমার গান ভালোবাসতে শুরু করে। এ ছাড়া চ্যানেল আইয়ের পক্ষ থেকে একটা ক্যাম্পের আয়োজন করা হয় আমাদের নিয়ে, সেখানে বড় বড় গুণী শিল্পী ভুলগুলো ধরিয়ে দিয়েছেন। সেই ক্যাম্পের পর গানে অনেক পরিবর্তন আনতে পেরেছি।

তিনটা সিনেমায় রাতুল: ২০১৩ সালে ক্ষুদে গানরাজ হওয়ার পর তিনটা সিনেমায় গায়ক হিসেবে কাজ করে নাইমুল ইসলাম রাতুল। সিনেমাগুলো হলো-পুত্র, কালো মেঘের ভেলা, কু ঝিক ঝিক। ২০১৮ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত সামাজিক চলচ্চিত্র ‘পুত্র’ ছবিটি পরিচালনা করেছেন সাইফুল ইসলাম মান্নু। কাহিনি লিখেছেন হারুন রশীদ। চলচ্চিত্রটি ৪৩তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে মোট ১১টি বিভাগে পুরস্কার লাভ করে। এই ছবির ‘যদি দুঃখ ছুঁয়ে’ শিরোনামে গানটির জন্য শ্রেষ্ঠ পুরুষ কণ্ঠশিল্পী বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৮ লাভ করে এই খুদে গায়ক। এ ছাড়া ‘আজ কিছু বলো না আমায়’ শিরোনামে একটা গান গেয়েছে ‘পুত্র’ সিনেমায়। ‘কালো মেঘের ভেলা’ চলচ্চিত্রটি পরিচালনা করেছেন মৃত্তিকা গুণ। চলচ্চিত্রটি নির্মিত হয়েছে নির্মলেন্দু গুণের ‘কালো মেঘের ভেলা’ উপন্যাস অবলম্বনে। ছবিটিতে ‘আর আমারে মারিস নে মা’ শিরোনামে একটি গান গেয়েছে রাতুল। রাতুলের কণ্ঠে শোনা যাবে কু ঝিক ঝিক সিনেমাটির টাইটেল সং।

৪৩তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার: ১৯৭৫ সাল থেকে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রদান করা হয়। বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের সবচেয়ে সম্মানজনক পুরস্কার বলা হয় একে। শুরুতে নমিনেশন পেয়েই খুশি ছিল রাতুল। এত এত গুণী শিল্পীর মাঝে শ্রেষ্ঠ গায়ক হয়ে যাবে তা রাতুলের জন্য রূপকথার মতো। প্রথম যখন জানল শ্রেষ্ঠ গায়ক হয়েছে, সেই মুহূর্তের অনুভূতি সম্পর্কে জানতে চাইলে বলল, আমি তখন শিক্ষকের কাছে পড়ছিলাম। হঠাত্ করে পরিচালক কল দিলেন, বললেন, ‘আমি শ্রেষ্ঠ গায়ক হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাচ্ছি।’ কিন্তু পরিচালক সাহেব রাতুলকে দিয়েছিলেন এক বড় শর্ত—কোথাও বলা যাবে না। তাই কী আর করে, শুধু মা-বাবা আর ওস্তাদকে জানাল এ খবর। কিন্তু ফেসবুকে ঢুকে দেখে চারদিকে হৈচৈ। সবাই জেনে গেছে খবরটা। শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছে রাতুলকে। তখন পরিচালক আবার জানালেন, তুমি সবাইকে বলতে পারো। এটা সব জায়গায় জানানো হয়ে গিয়েছে। তখন রাতুলকে আর খুঁজে পায় কে? স্বাভাবিকভাবেই ও মহাখুশি, এত কম বয়সেই চলচ্চিত্রে সর্বোচ্চ পুরস্কার অর্জন। ৮ ডিসেম্বর ছিল মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে পুরস্কার নেওয়ার দিন। খুলনা থেকে পরিবারসহ চলে আসে অনুষ্ঠানস্থলে। যখনই ঘোষণা, শ্রেষ্ঠ গায়ক নাইমুল ইসলাম রাতুল, তখনই মঞ্চের দিকে এগিয়ে গেল। রাতুলকে জিজ্ঞেস করলাম, সেই মুহূর্তে কী মনে হচ্ছিল। বলল, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে দেখেই চমকে গেলেন। এত ছোট ছেলে শ্রেষ্ঠ গায়ক, কেননা আগে শ্রেষ্ঠ গায়ক হয়েছে বড়রাই। এটা আমার জন্য গর্বের যে, এত গুণী শিল্পী থাকতে আমি শ্রেষ্ঠ গায়ক হিসেবে নির্বাচিত হয়েছি।’

 প্রথম মিউজিক ভিডিও: প্রথমবারের মতো মৌলিক গানের ভিডিও প্রকাশ করেছে রাতুল। সম্প্রতি ‘সাজনা রে’ শিরোনামের গানটি ইউটিউবে প্রকাশ পেয়েছে। গানের কথা ও সুর সুস্মিতা বিশ্বাস সাথীর। সংগীত পরিচালনা করেছেন রাফি মোহাম্মদ। রাতুলের সঙ্গে মিউজিক ভিডিওতে মডেল হয়েছেন অর্পিতা। মিউজিক ভিডিওটির নির্দেশনা দিয়েছেন জেমস সরকার ও হাসিবুর রহমান। এটাই রাতুলের প্রথম ‘মৌলিক’ গান। শ্রোতাদের থেকে ভালো মন্তব্য পাচ্ছে, জানিয়েছে রাতুল। রাতুল জানায়, ‘সাজনা রে’ গানটি এসএফ মাল্টিমিডিয়ার ব্যানারে প্রকাশ পেয়েছে। শিগগিরই বের হচ্ছে রাতুলের প্রথম গানের অ্যালবাম। সেখানেও থাকছে ‘সাজনা রে’ গানটি। ‘১০টা গান থাকছে অ্যালবামটিতে। সব কিছু ঠিকঠাক হলেই শ্রোতাদের জানাব প্রকাশের তারিখ।’ বলল এই খুদে গায়ক।

 খুলনার তারকা: ২০১৩ সালে ক্ষুদে গানরাজে রাতুলের তৃতীয় হওয়ার খবর খুলনাবাসী যখন জানতে পারে, সবাই তো উত্সবে মেতে ওঠে। মজার কাণ্ড শোনা যাক রাতুলের মুখ থেকেই, ‘আমি যখন ঢাকা থেকে ফিরে যাই, সবাই রেলস্টেশনে এসে হাজির। আমায় একটা গাড়িতে করে পুরো এলাকা ঘুরিয়ে দেখানো হলো। রাস্তার দুই পাশে সবাই ফুল ছিটাতে থাকে। অনেকে আমার ছবি দিয়ে টি-শার্ট পরেছিল। টি-শার্টে লেখা ছিল—খুলনার গর্ব আমাদের রাতুল। তখন নিজের জন্মস্থানের প্রতি একটা মায়া জন্মে যায়। যেখানে আমার জন্ম, সেই অঞ্চলের মানুষ আমাকে সত্যি মুগ্ধ করে দিয়েছে।’ জানতে চাইলাম, স্কুলে তো তারকা এখন সে। বন্ধুরা কী বলে জ্বালায়? ‘আমার বন্ধুরা তো গায়ক ছাড়া কিছুই বলে না, কয়েকজন তো আবার গায়ক হতে চায়, তখন মুশকিলে পড়ে যাই। অনেক ছোট ভাই-বোন ছবি তুলতে চায় আমার সঙ্গে, তখন অনেক ভালো লাগে। শিক্ষকদের কথা না বললেই নয়। তাঁরা আমাকে সব সময় সাহায্য করছেন মা-বাবার পরে। একটা ঘটনা বলতে হয়, আমার বার্ষিক পরীক্ষা চলছিল। ওই সময় জানতে পারলাম, ৮ ডিসেম্বর আমাকে পুরস্কার গ্রহণের জন্য ঢাকায় আসতে হবে। শিক্ষকদের জানালাম। আমার তিনটা পরীক্ষা বাকি তখন। প্রধান শিক্ষক বলেছেন, ‘তুমি পুরস্কার গ্রহণ করতে যাও, বাকিটা আমরা দেখব—এটা আমাদের জন্য গর্বের, আমাদের সন্তানরা জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাচ্ছে।’ গানের পাশাপাশি পড়ালেখায়ও ভালো। রাতুল পিএসসি, জেএসসি দুটিতেই জিপিএ ৫ পেয়েছে। এসএসসিতে ভালো করার লক্ষ্যে গান সামান্য কমিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছে। খুলনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হলেই ডাক পড়ে এই খুদে গায়কের। খুলনায় প্রায় সব বড় শিল্পীর সঙ্গে স্টেজে গান গাওয়ার স্মৃতি রয়েছে। নিয়মিত স্টেজে গান করছে এখন।

ভবিষ্যত্ চিন্তাভাবনা: রাতুল পড়ছে বিজ্ঞান বিভাগে, স্বপ্ন দেখে প্রকৌশলী হওয়ার। তাই গানের পাশাপাশি পড়ালেখায়ও সময় দেয়। গান গেয়ে আরো ভালোবাসা পেতে চায় মানুষের কাছ থেকে। রাতুলের পছন্দের শিল্পী অনেকে, তাই জানতে চেয়েছিলাম-এক দিনের জন্য যদি সুযোগ পাও যার সঙ্গে চাইবে তার সঙ্গে গান গাইতে পারবে, তবে কার সঙ্গে গান গাইবে? রাতুল একবারেই বলে ফেলল, ‘রুনা লায়লা ম্যামের সঙ্গে। ম্যামের সঙ্গে এবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে গিয়ে পরিচয় হয়, তিনি দোয়া করেছেন যেন অনেক বড় শিল্পী হতে পারি।’


এই নিউজ মোট   301    বার পড়া হয়েছে


সফলতার গল্প



বিজ্ঞাপন
ওকে নিউজ পরিবার
Shekh MD. Obydul Kabir
Editor
See More » 

প্রকাশক ও সম্পাদক : শেখ মো: ওবাইদুল কবির
ঠিকানা : ১২৪/৭, নিউ কাকরাইল রোড, শান্তিনগর প্লাজা (২য় তলা), শান্তিনগর, ঢাকা-১২১৭।, ফোন : ০১৬১৮১৮৩৬৭৭, ই-মেইল-oknews24bd@gmail.com
Powered by : OK NEWS (PVT) LTD.