12:14am  Tuesday, 04 Aug 2020 || 
   
শিরোনাম
 »  বাংলাদেশে ধর্ম যার যার উৎসব কিন্তু সবার: তথ্যমন্ত্রী     »  সেনা কর্মকর্তার অকাল মৃত্যুতে তীব্র ক্ষোভ ও নিন্দা জানিয়েছেন মির্জা ফখরুল      »  পূর্ণ সামরিক মর্যাদায় মেজর (অব.) সিনহা বনানী চিরনিদ্রায় শায়িত      »  করোনার বিস্তার রোধে চলাচলে নিয়ন্ত্রণ ৩১ আগস্ট পর্যন্ত বাড়ল     »  বিশেষজ্ঞদের পূর্বাভাস ভুল, করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে      »  বিশেষজ্ঞদের পূর্বাভাস ভুল, করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে      »  দিনাজপুরে করোনায় আরও একজনের মৃত্যুঃ নতুন আক্রান্ত ৪২ জন      »  নিজের নামে নয়, অন্যের নামে ৫০ সিমকার্ড ব্যবহার করেছেন সুশান্ত      »  ইতিহাসে একক মাসে এর আগে কখনো এতো পরিমাণ রেমিট্যান্স আসেনি     »  আর কত মানুষ মরলে ট্রাম্পের শিক্ষা হবে?   



ভিক্ষা করা অবস্থায় ৮৫ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বীরাঙ্গনা রওশন আরা বেগম
৩১ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ১৬ শ্রাবণ ১৪২৭, ৯ জিলহজ ১৪৪১



একই ঘরে আমারে আর আমার মাইয়ারে তিন দিন চার রাত কুকুরের মতো নির্যতন চালায়, ভিক্ষা করা অবস্থায় বার্ধক্যজনিত সমস্যায় ভুগে  ৮৫ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বীরাঙ্গনা রওশন আরা বেগম '

'ভাবছিলাম গোসলের পর মাইরা ফেলাইবে। আমাগে মারলো না তার চেয়ে বেশি কিছু করলো। একই ঘরে আমারে আর আমার মাইয়ারে এক সাথে নির্যাতন শুরু করলো। ওই দিন সারা রাত একের পর এক কুকুরের মতো নির্যতন চালায়।'

২০১৩ সালে কালের কণ্ঠের গোপালগঞ্জের প্রতিনিধি প্রসূন মণ্ডলের কাছে কথাগুলো বলছিলেন কাশিয়ানী উপজেলার বীরাঙ্গনা রওশন আরা বেগম।

দীর্ঘদিন বার্ধক্যজনিত সমস্যায় ভুগে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকাল চারটায় পশ্চিম মাঝিগাতি গ্রামে নিজ বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন তিনি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো ৮৫ বছর।

স্মৃতিচারণ করে ওই সময়ে বীরাঙ্গনা রওশন আরা বেগম যা বলছিলেন তা পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো। তিনি বলছিলেন, 'পাকিস্তানি মিলিটারিরা আমাগে ঘরের দরজা ভাঙিয়া ঢোয়ে। আইসা আমার স্বামীকে খুঁজে আর বকাবকি করে। আমি ভয়ে মাইয়াডারে বুহে জড়াই ধরি। তহন ঘরে আর কেউ ছেলো না। এক হারামজাদা মিলিটারি আমার বুয়েরথে মাইডারে টাই না নিয়ে চোখ বান্ধিয়া ফেলে। আর একজন বন্ধুক বুকে ঠেহাইয়া বলে চেচামেছি করলি ফায়ার কইরা দেবো। পরে আমারে ও মাইয়া মরিয়মকে চোখ বান্দিয়া ক্যাম্পে নিয়া যায়।'

তিনি বলছিলেন, 'ক্যাম্পে নিয়ে আমাগে সাবান দিয়ে গোসল করতে বলে। শীতের সময় ভয়ে ভয়ে গোসল করি। ভাবছিলাম গোসলের পর মাইরা ফেলাইবে। আমাগে মারলো না তার চেয়ে বেশি কিছু করলো। একই ঘরে আমারে আর আমার মাইয়ারে এক সাথে নির্যাতন শুরু করলো। নির্যতনের সময় আমার মেয়ে অসুস্তু হয়ে পড়লো। একটু সুস্থ হওয়ার পর আবারো তাকে নির্যাতন শুরু করে। ওই দিন সারা রাত একের পর এক কুকুরের মতো নির্যতন চালায়।

তিনি স্মৃতি চারণ করে বলছিলেন, 'ফজরের আযান দেয়ার পর থামে। তখন একটু ঘোমাই। দিনের বেলা ঘরে আটকায় রাখে। কোনমতে খাবার দিত। নির্যাতনে আমাগে দুইজনের জ্বর শুরু হলো। তাতেও তারা রেহাই দিলো না। রাত হলে শুরু করতো নির্যাতন। কত হাতে পায় ধরছি কোন কাজ হয়নাই। চিৎকার করতাম। ভাবতাম চিৎকার করলে গ্রামের মানুষ টের পাবে। আমরা মুক্তি পাবো। তাতে কোন কাজ হলো না।'

তিনি বলছিলেন, 'তিন দিন চার রাত এভাবে নির্যাতন করার পর মারাত্বক অসুস্থ অবস্থায় ছাইড়া দেয়। কোনমতে বাড়ি ফিরি। আইসা দেখি বাড়িতে কেউ নাই। খাবারও নাই। শুধু পানি খাইয়া দুইদিন কাটাই। তিন দিনের দিন আমার স্বামী মেলা রাতে বাড়ি ফেরে। ওই রাতে কোহানথেইকা যে সের খানেক আটা দিয়ে আবার চইলা যায়। এর ১৭ দিন পর দেশ স্বাধীনের আগেই আমার মরিয়ম মইরা যায়। তারে কোন ডাক্তার দেহাতে পারিনাই। বিনা চেষ্টায় মাইডা মইরা গেলো।'

বীরাঙ্গনা রওশন আরা আরো বলেছিলেন, 'দেশ স্বাধীনের পর তিনি ও তাঁর স্বামী মাঠে-ঘাটে, পরের জমিতে কাজ করে কোনমতে নতুন করে সংসার শুরু করেন। যে আয় হতো তা দিয়ে কোনমতে সংসার চলত। এর মধ্যে তাঁদের দুই ছেলে , এক মেয়ে হয়। এরপর স্বামী ভ্যান চালানো ধরে। ১৯৯০ সালের দিকে স্বামী মারা যায়। ছেলেরা বিয়ে করে আলাদা খায়। আমার খোঁজ খবর নেয়না। মেয়েটারও স্বামী মারা যায়। এরপর পরের বাড়ি ও রাস্তা ঘাটে দাড়িয়ে ভিক্ষা করা শুরু করি, আর মাইডা পরের বাড়ি কাজ করে। এইভাবে আমাদের সংসার চলতো।'

সুত্র-কালের কন্ঠ

দেশে ২৮ জনসহ করোনায় মৃত্যু ৩.১১১ জন, শনাক্ত ২,৭৭২ জনসহ আক্রান্ত ২,৩৭,৬৬১ জন
এই নিউজ মোট   468    বার পড়া হয়েছে


মুক্তিযুদ্ধ



বিজ্ঞাপন
ওকে নিউজ পরিবার
Shekh MD. Obydul Kabir
Editor
See More » 

প্রকাশক ও সম্পাদক : শেখ মো: ওবাইদুল কবির
ঠিকানা : ১২৪/৭, নিউ কাকরাইল রোড, শান্তিনগর প্লাজা (২য় তলা), শান্তিনগর, ঢাকা-১২১৭।, ফোন : ০১৬১৮১৮৩৬৭৭, ই-মেইল-oknews24bd@gmail.com
Powered by : OK NEWS (PVT) LTD.