12:05pm  Friday, 03 Apr 2020 || 
   
শিরোনাম
 »  করোনার বিস্তাররোধে পুলিশের কর্মকাণ্ডে আমি অত্যন্ত গর্বিত ও সম্মানিত বোধ করছি     »  করোনা মোকাবেলা সরকারকে সত্যটা বলতে হবে, নতুবা আসবে ১৯১৮'র মহামারি     »  ত্রাণ নিতে গিয়ে হিজড়া সম্প্রদায় দিয়ে দেখিয়ে দিল শৃঙ্খলা কাকে বলে      »  বাংলাদেশের ইশরাত করিম ও রাবা খান ফোর্বসের তালিকায়      »  ৩ এপ্রিল চ্যানেল আইতে যা দেখবেন      »  কর্মহীন মানুষদের খাদ্যসামগ্রী দিচ্ছে গাইবান্ধার এসএসসি ০২ ব্যাচ      »  বিরামপুরে জ্বর-শ্বাসকষ্টে মারা যাওয়া ফরহাদ হোসেন করোনা আক্রান্ত ছিলেন না      »  ভোলাহাটে ইউএনও সেনাবাহিনী পুলিশের ব্যাপক টহল     »  শিবগঞ্জে দু:স্ত অসহায়দের পাশে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “এসো মানুষের পাশে”     »  শিবগঞ্জে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে গণজমায়েত এড়াতে প্রশাসন ও সেনাবাহিনীর অভিযান    



জেনে নিন দক্ষিণের তারকারা করোনা তহবিলে কে কত দিলেন



করোনাভাইরাসের কারণে ভারতে লকডাউন চলছে গত মঙ্গলবার থেকে। দেশটি বেশির ভাগ মানুষই ঘরবন্দী। মৃত মানুষের সংখ্যা গুটি গুটি পায়ে বেড়ে চলেছে। দেশটির বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শুধু লকডাউনে কাজ হবে না; করোনা ঠেকাতে স্বাস্থ্য খাতে চাই বিপুল বিনিয়োগ। এই পরিস্থিতিতে ত্রাতা হয়ে এগিয়ে এলেন দক্ষিণের ছবির সুপারস্টাররা। দুহাত খুলে দান করছেন ভারতের তারকারা।

সহায়তা বা দান, যা-ই বলা হোক না কেন, এ ক্ষেত্রে সবার চেয়ে এগিয়ে দক্ষিণের ‘বাহুবলী’ তারকা প্রভাস। ‘সাহো’ তারকা করোনা মোকাবিলার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ত্রাণ তহবিলে দিয়েছেন ৩ কোটি রুপি। এ ছাড়া তেলেঙ্গানা ও অন্ধ্র প্রদেশ সরকারের তহবিলে ৫০ লাখ রুপি করে দিয়েছেন ‘মিরচি’ তারকা প্রভাস।

ইউরোপ থেকে ফিরে আপাতত স্বেচ্ছায় কোয়ারেন্টিনে আছেন প্রভাস। তবে পিছিয়ে নেই দক্ষিণের অন্য তারকারাও।

অন্ধ্র প্রদেশে রাজনৈতিক দল জনসেনার প্রধান ও অভিনেতা পবন কল্যাণ প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ১ কোটি রুপি দিয়েছেন। এ ছাড়া তেলেঙ্গানা ও অন্ধ্র প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীদের তহবিলেও দিয়েছেন ৫০ লাখ করে রুপি।

করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এগিয়ে এসেছেন দক্ষিণের সুদর্শন অভিনেতা মহেশ বাবুও। অন্ধ্র ও তেলেঙ্গানার রাজ্যর ত্রাণ তহবিলে ১ কোটি করে রুপি দিয়েছেন তিনি। টুইটে অন্যদেরও এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন সুপারস্টার মহেশ বাবু।

‘মাগাধিরা’ অভিনেতা রাম চরণ প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দিয়েছেন ৭০ লাখ রুপি। সবাইকে ঘরে নিরাপদ থাকার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

এনটিআর জুনিয়র মোট ৭৫ লাখ রুপি দান করেছেন। অন্ধ্র ও তেলেঙ্গানা দুই রাজ্যর ত্রাণ তহবিলে ২৫ করে মোট ৫০ লাখ রুপি দিয়েছেন। আর দক্ষিণের টেকনিশিয়ানদের জন্য ২৫ লাখ রুপি দিয়েছেন ‘আরআরআর’ তারকা।

এদিকে অন্ধ্র ও তেলেঙ্গানা রাজ্য সরকারের তহবিল অর্থ দিয়েছেন ‘ডিজে’ তারকা আল্লু আর্জুন। এর পাশাপাশি কেরালা রাজ্যরও মানুষের পাশেও দাঁড়িয়েছেন তিনি। তিন রাজ্যর মুখ্যমন্ত্রীর তহবিলে মোট ১ কোটি ২৫ লাখ রুপি দান করেছেন তিনি।

দক্ষিণের তারকা নীতিন অন্ধ্র ও তেলেঙ্গানার রাজ্যের ত্রাণ তহবিলে ১০ লাখ করে মোট ২০ লাখ রুপি দিয়েছেন। এই তারকা করোনার কারণে পিছিয়ে দিয়েছেন নিজের বিয়ে। নীতিনই প্রথম তারকা, যিনি করোনার মোকাবিলায় সবার আগে অর্থ সহায়তা দিয়েছেন।

টেকনিশিয়ানদের ৫০ লাখ রুপি সাহায্য রজনীকান্তের
বলিউডসহ আঞ্চলিক সব ছবির শুটিং বন্ধ। সেলিব্রিটিদের এর ফলে আর্থিকভাবে কোনো ক্ষতি না হলেও টেকনিশিয়ান ও জুনিয়র আর্টিস্টদের অনেকেই আর্থিক সমস্যায় ভুগবেন। তাঁদের সাহায্যে এগিয়ে এলেন রজনীকান্ত। ফিল্ম এমপ্লোয়িস ফেডারেশন অব সাউথ ইন্ডিয়াকে ৫০ লাখ রুপি দেওয়ার কথা ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

দক্ষিণী ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির প্রায় ৭০ শতাংশ কর্মী দৈনিক মজুরি ভিত্তিতে কাজ করেন। শুটিং বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সমস্যায় পড়েছেন তাঁরা। অনেক ছোটখাটো টেকনিশিয়ানের দিন পার করাই মুশকিলে পড়েছেন। তাই তাঁদের আর্থিক সমস্যা থেকে অব্যাহতি দিতে ৫০ লাখ রুপি দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন রজনীকান্ত।

অবশ্য শুধু রজনীকান্তই নন, ‘সিংহাম’ তারকা সুরিয়া ও তাঁর ছোট ভাই কার্থিও টেকনিশিয়ানদের জন্য ঘোষণা ১০ লাখ করে রুপি দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। তাঁর বাবা শিবকুমার ও ১০ লাখ রুপি দিয়েছেন।

‘৯৬’ তারকা বিজয় সেতুপতি ১০ লাখ রুপি দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন।

তারকাদের এই আর্থিক সহায়তার কারণে প্রতিটি পরিবার অন্তত ভাতা পাবে। এতে তাদের নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যের চাহিদাটুকু মিটে যাবে।

বয়স্কদের খাবারের ব্যবস্থা করলেন দিয়া মির্জা
লকডাউনের কারণে অত্যাবশ্যকীয় দ্রব্য পাওয়া যাচ্ছে না ঠিকমতো। ছোট-বড় রেস্তোরাঁসহ ফুটপাতের খাবারের দোকানগুলোও বন্ধ। বাড়ির খাবার ফুরিয়ে আসার জোগাড় অনেকের। এমন পরিস্থিতিতে বয়স্ক মানুষের জন্য এগিয়ে এলেন বলিউড অভিনেত্রী দিয়া মির্জা।

মুম্বাইয়ে থাকেন দিয়া মির্জা। যে এলাকায় তিনি থাকেন, সেখানকার বাসিন্দাদের অনেকেই বয়স্ক। বয়স্করা বাড়ির বাইরে বেরোতে পারছেন না ঝুঁকি নিয়ে। অনলাইন সওদা করার সুযোগও কম। তাই সেই এলাকার বাসিন্দা হওয়ায় দিয়া সবজিওয়ালা ও ফল বিক্রেতাদের ঠিক করে দিয়েছেন বাড়ি পণ্য পৌঁছে দিতে। তাঁরা সপ্তাহে দুদিন করে এলাকার বয়স্ক মানুষদের প্রয়োজনীয় খাবারের সামগ্রী দিয়ে যাবেন।

মাস্ক কিনে দিলেন হৃতিক
আর্থিক সাহায্য না করেও সাহায্যদাতাদের তালিকায় নাম লেখালেন হৃতিক রোশন। করোনা মোকাবিলায় মুম্বাই মিউনিসিপ্যাল করপোরেশনের কর্মীদের ২০ লাখ এন৯৫ ও এফএফপি৩ মাস্ক কিনে দিয়েছেন হৃতিক রোশন।


এই নিউজ মোট   64    বার পড়া হয়েছে


বলিউড



বিজ্ঞাপন
ওকে নিউজ পরিবার
Shekh MD. Obydul Kabir
Editor
See More » 

প্রকাশক ও সম্পাদক : শেখ মো: ওবাইদুল কবির
ঠিকানা : ১২৪/৭, নিউ কাকরাইল রোড, শান্তিনগর প্লাজা (২য় তলা), শান্তিনগর, ঢাকা-১২১৭।, ফোন : ০১৬১৮১৮৩৬৭৭, ই-মেইল-oknews24bd@gmail.com
Powered by : OK NEWS (PVT) LTD.