কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোয় চলছে টার্গেট কিলিং, সাত মাসে ৩০ খুন

অনুসন্ধানী প্রচ্ছদ হ্যালোআড্ডা

কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোয় চলছে টার্গেট কিলিং। ক্যাম্পে আধিপত্য বিস্তার, চাঁদাবাজিসহ অপরাধ নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে নিয়োজিত মাঝি, সাবমাঝি ও জিম্মাদারদের তালিকা তৈরি করে চলছে হত্যাযজ্ঞ। এ টার্গেট কিলিংয়ের নেপথ্যে রয়েছে ক্যাম্পে সক্রিয় চার জঙ্গি সংগঠন এবং ছোটবড় সন্ত্রাসী গ্রুপগুলো। গত সাত মাসে ক্যাম্পে ৩০ খুনের মধ্যে সিংহভাগই শিকার হয়েছেন টার্গেট কিলিংয়ের।

কক্সবাজারের টেকনাফে উপজেলার এপিবিএন-১৪ অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি সৈয়দ হারুন উর রশিদ বলেন, ‘ক্যাম্পে সংঘটিত বেশির ভাগই খুন হয়েছেন আধিপত্য বিস্তার কেন্দ্র করে। সম্প্রতি খুন হওয়া বেশির ভাগই ছিলেন ক্যাম্পের বিভিন্ন ব্লকের মাঝি ও সহকারী মাঝি। এসব খুনে জড়িতদের অনেকেই গ্রেফতার হয়েছেন। যাদের গ্রেফতার করা যায়নি, তাদের গ্রেফতারে অভিযান চালানো হচ্ছে।’

অনুসন্ধানে জানা যায়, ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অভিযানের মুখে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার শুরু করে আবু আম্মার জুনুনী ওরফে আতাউল্লাহর নেতৃত্বাধীন আরসা। এ সময় ৩২ রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে একক আধিপত্য বিস্তার করে আরসা। কিন্তু ২০২১ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর আরসার সদস্যদের হাতে খুন হন রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে কাজ করা মাস্টার মুহিবুল্লাহ। এরপর পাল্টে যেতে থাকে ক্যাম্পের চিত্র। রোহিঙ্গাদের মধ্যে আরসাবিরোধী মনোভাব তৈরি হওয়ায় এবং প্রশাসনের অভিযানের মুখে ক্যাম্প ছেড়ে পালিয়ে যায় আরসা সদস্যরা। ফলে একে একে প্রায় সব ক্যাম্প হাতছাড়া হতে থাকে তাদের। এ সুযোগে ক্যাম্পে আধিপত্য বিস্তার করে অন্য সক্রিয় তিন জঙ্গি সংগঠন রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশন (আরএসও), ইসলামী মাহাজ ও জমিয়তুল মুজাহিদীন। তারা ক্যাম্পে নিজেদের অবস্থান সংহত করার পাশাপাশি ক্যাম্প পরিচালনার জন্য মাঝি, সাবমাঝি ও জিম্মাদার হিসেবে নিজেদের লোকজন নিয়োগ দেয়। কিন্তু গত বছরের জুনের পর থেকে ফের ক্যাম্পে অবস্থান নেওয়ার জন্য চেষ্টা শুরু করে আরসা। তখন তাদের প্রচেষ্টায় বাধা হয়ে দাঁড়ায় মাঝি, সাবমাঝি ও ক্যাম্পের জিম্মাদাররা। তাই ক্যাম্পে মাঝি, সাবমাঝি ও জিম্মাদারদের টার্গেট করে কিলিং মিশনে নামে আরসা। খুনের বদলা নিতে রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশন (আরএসও), ইসলামী মাহাজ ও জমিয়তুল মুজাহিদীন সদস্যরা আরসা অনুসারী মাঝি, সাবমাঝি ও জিম্মাদার খুনের মিশনে নামে। এভাবেই দীর্ঘ হতে থাকে ক্যাম্পের টার্গেট কিলিংয়ের তালিকা। এ ছাড়া জঙ্গি সংগঠনগুলোর পাশাপাশি ক্যাম্পে সক্রিয় রয়েছে ছোটবড় শতাধিক সন্ত্রাসী গ্রুপ। চাঁদাবাজি, ছিনতাই, ডাকাতি, অস্ত্র ও মাদক কারবার, মানব পাচার, অপহরণসহ ১৪ ধরনের অপরাধ সংঘটিত করছে তারা। তাদের প্রভাব বিস্তারেও মূল ফ্যাক্টর ক্যাম্পের মাঝি, সাবমাঝি ও জিম্মাদাররা। তাই সন্ত্রাসী গ্রুপগুলো ক্যাম্পে প্রভাব বিস্তার নিয়ে একে অন্যের অনুসারীদের খুন করছে। কক্সবাজারের আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর তথ্যমতে, গত সাত মাসে রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে কমপক্ষে ৩০ খুনের ঘটনা ঘটে। খুনের শিকার অধিকাংশই ছিলেন ক্যাম্পের বিভিন্ন ব্লকের মাঝি ও সহকারী (সাব) মাঝি। ক্যাম্পে আধিপত্য বিস্তারের জেরে তারা টার্গেট কিলিংয়ের শিকার হয়েছেন। এ ঘটনাগুলোর জন্য ক্যাম্পে সক্রিয় জঙ্গি সংগঠন আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি (আরসা), রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশন (আরএসও), ইসলামী মাহাজ ও জমিয়তুল মুজাহিদীনকে দায়ী করা হয়। এ ছাড়া আধিপত্য বিস্তার কেন্দ্র করে প্রায় প্রতিদিনই সংঘাতে জড়িয়ে পড়েন ক্যাম্পে সক্রিয় জঙ্গি সংগঠনের সদস্যরা। সর্বশেষ বুধবার ভোররাতে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির তমব্রু সীমান্তের শূন্যরেখায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে আরসা ও আরএসও। দিনব্যাপী ওই সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন।

আরো পড়ুন : এবার আমের পর রপ্তানি বাজারে রাজশাহীর পেয়ারা ও বরই

Share The News

Leave a Reply

Your email address will not be published.