ঢাবিতে রড দিয়ে শিক্ষার্থীকে পেটানোর অভিযোগ ছাত্রলীগ কর্মীর বিরুদ্ধে

ক্রাইম নিউজ পুরুষ অধিকার প্রচ্ছদ রাজনীতি শিক্ষা

নিজস্ব প্রতিনিধি: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) বিজয় একাত্তর হলে রুম পরিবর্তনে দেরি করায় এক শিক্ষার্থীকে রড দিয়ে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ উঠেছে হল ছাত্রলীগের এক সদস্যের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার (৮ নভেম্বর) রাত সাড়ে ৯টার দিকে হলের ১১০০১ নম্বর রুমে এই ঘটনা ঘটে।

মারধরের শিকার শিক্ষার্থীর নাম রাসেল আহমেদ। তিনি বাংলা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী।

অভিযুক্ত ছাত্রলীগ কর্মীর নাম ইসমাইল আব্দুল মোনাফ (প্রান্ত)। তিনি হল শাখা ছাত্রলীগের সদস্য।

প্রত্যক্ষদর্শী একাধিক শিক্ষার্থী জানান, হল ছাত্রলীগের কমিটি হওয়ার পর এদিন এলাকাভিত্তিক গ্রুপ আলাদা হয়ে যাচ্ছিল। ফলে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন রুমে নতুন করে শিফট করা হয়।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী যে রুমে থাকতেন সেই রুমে শিফট হয় অভিযুক্ত প্রান্ত। রাত সাড়ে ৮টায় রুমে সবাই না থাকার কারণে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী কিছুটা দেরিতে রুম থেকে বের হতে চেয়েছিল যাতে রুমের সবাই আসলে একসঙ্গে বের হতে পারে। ওই রুমের সবাইকে আলাদা আলাদা রুমে শিফট করা হয়। ফলে সবাই নিজেদের নতুন রুমে চলে যায় কিন্তু তিনজন শিক্ষার্থী রুম ছাড়তে একটু দেরি করে। তাদের মাঝে ভুক্তভোগী রাসেল একজন।

শিক্ষার্থীরা জানান, প্রান্ত রুমে এসে রাসেলের সঙ্গে বাগবিতণ্ডায় লিপ্ত হয়। এক পর্যায়ে হাতের কাছে রড পেয়ে তা দিয়ে রাসেলকে মারধর করে। মুখে থাপ্পড় দেয়। মারধরের কারণে রাসেল তার কোমরে আঘাত পায়। পরে ঢাকা মেডিক্যালে গিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা নেয় রাসেল।

ভুক্তভোগীর সঙ্গে থাকা তার এক সহপাঠী জানান, রুম পরিবর্তনের বিষয় নিয়ে ঝামেলা হয়েছিল। আমাদের এক ব্যাচমেট নাম প্রান্ত তার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেছে এবং একপর্যায়ে রড দিয়ে কোমরে বাড়ি দেয়। পরে রাসেলকে নিয়ে আমরা ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে আসি। সেখানে চিকিৎসক তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েছে। তার এক্স-রেও করানো হয়েছে। বর্তমানে তাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ ডা. মোহাম্মদ মুর্তজা মেডিক্যাল সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত মোনাফ প্রান্তকে একাধিক বার কল দেওয়া হলেও তিনি কল রিসিভ করেননি।

এ বিষয়ে বিজয় একাত্তর হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু ইউনুস বলেন, ঘটনাটি দুজনের ব্যক্তিগত বিষয়। তবুও বিষয়টি প্রমাণিত হলে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে আমরা সাংগঠনিক কাঠামোতে ব্যবস্থা নেব।

এ বিষয়ে হল প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আব্দুল বাছির বলেন, আমি এ বিষয়টি শুনেছি। যদি ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী লিখিত অভিযোগ করে তাহলে এর বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আরো পড়ুন : নড়াইলে জেলার লোহাগড়ায় পৈতৃক ভিটায় কিছু সময় কাটান সেনাপ্রধান

Share The News

Leave a Reply

Your email address will not be published.