নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিরাও সন্দেহের তালিকায় রেখে রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রে র‌্যাবের অভিযান 

অনুসন্ধানী ক্রাইম নিউজ প্রচ্ছদ

খুলনা প্রতিনিধি: রামপাল তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের বিভিন্ন মালামাল প্রতিদিনই চুরি হচ্ছে। বিদ্যুতের তার, লোহার সরঞ্জামসহ বিভিন্ন মালামাল ট্রাকে করে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে। পরে কম মূল্যে তা চোরাই মার্কেটে বিক্রি করা হয়। গত তিন মাসে পরপর কয়েকটি ঘটনায় বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে চুরি হওয়া মালামাল উদ্ধার করেছে র‌্যাব। জানা যায়, সর্বশেষ ১৬ জানুয়ারি রামপালের সাতমারীতে বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভেল কোম্পানি থেকে নির্মাণকাজে ব্যবহৃত ১২০০ কেজি লোহার মালামাল চুরি হয়। যার মূল্য প্রায় দেড় লাখ টাকা। এ ঘটনায় বটিয়াঘাটার কাতিয়ানাংলা থেকে চক্রের মূলহোতা রাজু রায়কে (২৮) গ্রেফতার করে র‌্যাব। সেখান থেকে লোহার সরঞ্জামসহ চোরাই কাজে ব্যবহৃত একটি মিনি ট্রাক জব্দ করা হয়। এ ঘটনায় রামপাল তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে ভেল কোম্পানির সিকিউরিটি সুপারভাইজার বাদী হয়ে বটিয়াঘাটা থানায় মামলা করেন। এর আগে গত বছরের ৩ অক্টোবর বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ভেল কোম্পানির ১ ও ২ নম্বর ইয়ার্ড থেকে ১৫৫ কেজি বিদ্যুতের তার চুরি হয়। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে রামপাল তমা ব্রিজ এলাকায় অভিযান চালিয়ে জামাল শেখ, ফরিদ ও আল-আমিন নামের তিনজনকে গ্রেফতার ও চুরি হওয়া বৈদ্যুতিক তার উদ্ধার করে। তারের মূল্য ২ লাখ ৩২ হাজার টাকা। অভিযোগ রয়েছে, বিদ্যুৎ কেন্দ্র ও আশপাশের দাকোপ পানখালি, বাটিয়াঘাটা কাতিয়ানাংলা এলাকায় চোর চক্রের শক্তিশালী নেটওয়ার্ক রয়েছে। এরা মাঝে মধ্যে বিভিন্ন স্থান থেকে নির্মাণকাজে ব্যবহৃত মালামাল ছিনিয়ে নিয়েও বাইরে উচ্চমূল্যে বিক্রি করছে।

কর্মকর্তারা জানান, ২০২২ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর রামপালের সাতমারী থেকে গানাত্রা হেভি লিফটারস কোম্পানির ৫ নম্বর ইয়ার্ড থেকে ১২২০ কেজি ওজনের ২৯টি লোহার পাইপ লুট হয়। যার বাজারমূল্য প্রায় ৬ লাখ টাকা। পরে র‌্যাবের অভিযানে রূপসা নদী থেকে ট্রলারসহ ঘটনায় জড়িত কবির শেখসহ পাঁচজন গ্রেফতার হয়। কবির শেখ নিজেই একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট পরিচালনা করছেন।

২৪ সেপ্টেম্বর র‌্যাবের অভিযানে বটিয়াঘাটা কাতিয়ানাংলা স্লুইসগেট থেকে কবির শেখের সহযোগী বাবু শেখ, জাবের শেখ, মহসিন গাজী, মিকাইল শেখ, হুরাইরা মোল্লা গ্রেফতার হয়। এ সময় চুরি করা ১২২০ কেজি লোহার পাইপ, চোরাই কাজে ব্যবহৃত ইঞ্জিনচালিত নৌকা ও মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়।

স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বিভিন্ন ইয়ার্ড থেকে মাঝে মধ্যে ট্রাকে করে মালামাল চুরি হয়। এ ঘটনায় নিরাপত্তায় থাকা লোকজনও জড়িত থাকতে পারে। বিদ্যুৎ কেন্দ্রে মালামাল চুরি বন্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয়েছে।

আরো পড়ুন : র‌্যাবের প্রশংসা করলেও নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের সময়সীমার ইঙ্গিত দেননি ডোনাল্ড লু

Share The News

Leave a Reply

Your email address will not be published.