রাজশাহীতে রাজনীতির মাঠ উত্তপ্ত 

ক্রাইম নিউজ প্রচ্ছদ মুক্তমত রাজনীতি হ্যালোআড্ডা

হঠাৎ বিভিন্ন স্থানে ককটেল বিস্ফোরণ, সমাবেশ-পাল্টা সমাবেশ। রাজশাহীতে রাজনীতির মাঠ উত্তপ্ত 

নিজস্ব প্রতিবেদক: ৩ ডিসেম্বর রাজশাহী মাদরাসা মাঠে হবে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ। সমাবেশ ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে উঠছে রাজশাহী অঞ্চলের রাজনৈতিক পরিস্থিতি। হঠাৎ বিভিন্ন স্থানে ককটেল বিস্ফোরণ, সমাবেশ-পাল্টা সমাবেশ কেন্দ্র করে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হচ্ছে। এরই মধ্যে দায়ের হয়েছে বেশ কয়েকটি মামলা। বিএনপি নেতা-কর্মীরা দাবি করছেন, গণসমাবেশ টার্গেট করে প্রশাসন দিয়ে নেতা-কর্মীদের হয়রানি করতে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা সাজানো হচ্ছে। সেসব ঘটনায় মামলা দিয়ে নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ। তাদের প্রস্তুতিমূলক সমাবেশ পণ্ড করা হচ্ছে পাল্টা কর্মসূচি দিয়ে। তবে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা দাবি করেছেন, গণসমাবেশ সামনে রেখে বিএনপি নেতা-কর্মীরা আবার নানা অপতৎপরতায় মাঠে নেমেছেন। তারা নানাভাবে নাশকতার চেষ্টা চালাচ্ছেন। এ কারণে তাদের পাল্টা জবাব দিতে সমাবেশ করছে আওয়ামী লীগ-যুবলীগসহ বিভিন্ন অঙ্গসংগঠন।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ২০ নভেম্বর রাত ১১টার দিকে দুর্গাপুর বাজারে ৪টি অবিস্ফোরিত ককটেলসহ বাঁশের লাঠিসোঁটা উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় উপজেলা ও পৌর বিএনপির ১৬ নেতার নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ১৫০-১৬০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে পুলিশ। পুঠিয়ার সৈয়দপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে মঙ্গলবার বিকালে প্রস্তুতি সভা ডাকে উপজেলা বিএনপি। সেখানে পাল্টা সমাবেশ ডাকে উপজেলা যুবলীগ। এরপর ওই জায়গাটির দখল নেয় যুবলীগ। ফলে পণ্ড হয়ে যায় বিএনপির সভা। এ ঘটনার আগে বিকালে মোল্লাপাড়ায় বিএনপির প্রস্তুতি সভার মঞ্চ ভাঙচুর করেন যুবলীগের নেতা-কর্মীরা। সেখানে কয়েকটি ককটেল উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় বিএনপির ১৬ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে বিস্ফোরক আইনে মামলা হয়। এ মামলায় একজনকে গ্রেফতারও করা হয়।

রাজশাহী মহানগরী বিএনপির সাবেক সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল বলেন, ‘বিএনপি একটি বড় দল, সেখানে আরও বেশি হওয়ার কথা। কিন্তু এখন সবাই বুঝে গেছেন। ৩ ডিসেম্বরের গণসমাবেশ সফল করতে একসঙ্গে কাজ করছেন সবাই। আর এটি দেখে সরকারদলীয় নেতা-কর্মীরা হতাশ হয়ে আমাদের সভা-সমাবেশ পণ্ড করতে নানা অপতৎপরতা চালাচ্ছেন। তারা নিজেরা ককটেল রেখে আমাদের নামে মামলা দিচ্ছেন। নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে পুলিশ দিয়ে।’ মঙ্গলবার গ্রেফতার করা হয় জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক এমপি নাদিম মোস্তফাকে। সোমবার গভীর রাতে নাটোর সদরের দিঘাপাতিয়া ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া বাজার এলাকায় পাঁচটি শক্তিশালী বোমার (ককটেল) বিস্ফোরণ ঘটে। এ ছাড়া সেখান থেকে উদ্ধার করা হয়েছে আরও আটটি বোমা। এ ঘটনায় পুলিশ স্থানীয় ইউনিয়ন বিএনপির যুগ্মসম্পাদক আবদুল ওয়াহাব আলীকে গ্রেফতার করেছে।

রাজশাহী বিভাগীয় গণসমাবেশের প্রধান সমন্বয়কারী ও বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু বলেন, ‘বিএনপির রাজশাহী বিভাগীয় গণসমাবেশে স্মরণকালের বৃহৎ জনসমাবেশ হবে। এর জন্য আমরা এরই মধ্যে যখন নানা প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছি তখন নেতা-কর্মীদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে পুলিশ।’

আরো পড়ুন : ‘আপনারা যা চাইবেন, আমি তার চেয়ে বেশি করেছি, আরও বেশি দেব’

Share The News

Leave a Reply

Your email address will not be published.