সেন্ট জোসেফস স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র হিসেবে আমি গর্বিত- সেনাপ্রধান

প্রচ্ছদ মুক্তমত শিক্ষা

খুলনা প্রতিনিধি: সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ বলেছেন, খুলনার ঐতিহ্যবাহী সেন্ট জোসেফস স্কুল আমার স্কুল। আমি নিজেকে গর্বিত মনে করি এ স্কুলের একজন প্রাক্তন ছাত্র হিসেবে। সারা জীবন আমি এ প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট হয়ে থাকতে চাই। গতকাল তিনি খুলনার সেন্ট জোসেফস হাইস্কুলের গৌরবের ৮৩ বছর উদযাপন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন। ১৯৪০ সালের ৬ জানুয়ারি স্কুলটি প্রতিষ্ঠিত হয়। খুলনা জোসেফিয়ান অ্যালামনাই স্কুলটির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এ উদযাপন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

স্কুল জীবনের স্মৃতিচারণ করে সেনাপ্রধান বলেন, আমি যখন ১৯৭১ সালের শুরুতে এ স্কুলে ভর্তি হই তখনকার প্রেক্ষাপটে সেন্ট জোসেফস স্কুলে ভর্তি হওয়াটা ছিল অত্যন্ত গৌরবের ব্যাপার। পুরো খুলনা বিভাগের ভিতরে সেন্ট জোসেফস স্কুল ছিল সবার মধ্যে আলাদা একটা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। শুধু পুঁথিগত পড়ালেখাই ফোকাস নয়, অন্যান্য কো-কারিকুলাম ও সামগ্রিকভাবে সুনাগরিক হিসেবে গড়ার সুন্দর একটি প্রতিষ্ঠান এ স্কুল। তিনি বলেন, সকালে আমাদের অ্যাসেম্বলি, ন্যাশনাল এন্থেম, লাইন করে ক্লাসে যাওয়া- এসব স্কুলের বাইরে রাস্তায় দাঁড়িয়ে লোকজন দেখত। তখন স্কুলপ্রাঙ্গণে লাইন দিয়ে অনেক সুন্দর সুন্দর সাবু গাছ ছিল। স্কুলের প্রবেশ পথে একটা বড় শিরীষ গাছ ছিল। একটা ডিজিটাল ঘড়ি ছিল, ১২টার পর যে ১৩টা বাজে এটা দেখার জন্যও লোকজন লাইন দিয়ে আসত। এটা খুবই ইউনিক নতুন ব্যাপার ছিল তখনকার সময়।

সেনাপ্রধান আরও বলেন, সেন্ট জোসেফস স্কুলে ভর্তি হওয়ার কারণে আমার ভিতরে একটা সেলফ কনফিডেন্স তৈরি হয়। আমার নিজের প্রতিই নিজের সম্মান বেড়ে যায়। যেটা ভবিষ্যতে আমাকে অন্যান্য প্রতিষ্ঠান কর্মক্ষেত্রে আজকের অবস্থানে আসার জন্য অনেক সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে।

অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন উদযাপন অনুষ্ঠানের আহ্বায়ক শেখ সরাফত আলী দুলু, সমন্বয়ক এস এম হারুনুর রশিদ ও প্রধান শিক্ষক আলফ্রেড রণজিৎ মণ্ডল।

আরো পড়ুন : হিমছড়ি এলাকায় মেরিন ড্রাইভ সড়কে চাঁদের গাড়ি উল্টে নিহত ১, আহত ৭

Share The News

Leave a Reply

Your email address will not be published.