সেভেরোদোনেত্স্ক ঘিরে প্রচণ্ড লড়াইয়ে ইউক্রেনীয় বাহিনী এগিয়ে ; সামরিক গোয়েন্দা প্রধান

আন্তর্জাতিক জনদুর্ভোগ প্রচ্ছদ

ইউক্রেনে চলমান রুশ অভিযানের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকা সেভেরোদোনেত্স্ক শহরের চারপাশ ঘিরে সবচেয়ে ভয়াবহ লড়াই হচ্ছে বলে জানিয়েছেন যুদ্ধকবলিত দেশটির সামরিক গোয়েন্দা প্রধান মেজর জেনারেল কিরিলো বুদানোভ। সেই লড়াইয়ে রুশ বাহিনী নয়, বরং এগিয়ে আছে ইউক্রেনীয় বাহিনী, এমন মন্তব্য করেছেন তিনি।

দনবাসের সেভেরোদোনেত্স্কসহ গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন শহরে রুশ বাহিনীর অব্যাহত হামলা, যুক্তরাষ্ট্রের পর এবার ইউক্রেনকে অস্ত্র দেওয়ার ব্যাপারে যুক্তরাজ্যের ঘোষণা, এতে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের কড়া প্রতিক্রিয়া, ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে রুশ হামলা—এসবের মধ্যে সেভেরোদোনেত্স্ক পরিস্থিতি তুলে ধরলেন ইউক্রেনের গোয়েন্দাপ্রধান।

মেজর জেনারেল বুদানোভ দাবি করেন, শত্রুপক্ষের তুলনায় সংখ্যায় পিছিয়ে থাকলেও ক্রমেই তাদের পেছনে হটিয়ে দিচ্ছে ইউক্রেনের সেনাবাহিনী।

এর আগে আঞ্চলিক গভর্নর জানান, সেভেরোদোনেত্স্ক শহরের গুরুত্বপূর্ণ কিছু অংশ পুনর্দখলে ইউক্রেনীয় বাহিনীর অগ্রগতি হলেও সার্বিক যুদ্ধ পরিস্থিতি ‘আরো খানিকটা খারাপের দিকে গেছে’।

এদিকে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভোলোদিমির জেলেনস্কি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া ব্রিফিংয়ে দাবি করেন, সংখ্যায় রুশ বাহিনী এগিয়ে থাকলেও তাদের প্রতিহত করার ‘সব সুযোগ’ ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর হাতে। তবে তিনি এটাও স্বীকার করেন, রুশ বাহিনী আরো সামনে এগোলে পরিস্থিতি ‘খুব কঠিন হয়ে উঠতে পারে’। নিজ দেশের পূর্বাঞ্চলের পরিস্থিতি তুলে ধরার পাশাপাশি দক্ষিণের পরিস্থিতি নিয়েও কথা বলেন প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি। তাঁর ভাষ্য, রুশ বাহিনী ঝাপোরিঝঝিয়া দখলের চেষ্টা চালাচ্ছে এবং দক্ষিণাঞ্চলও হুমকির মুখে।

ইউক্রেনকে দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র দিচ্ছে যুক্তরাজ্য :

যুক্তরাষ্ট্রের পর এবার আরেক মিত্র যুক্তরাজ্য ইউক্রেনকে দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র দিচ্ছে। মাল্টিপল লঞ্চ রকেট সিস্টেম তথা এমএলআরএস পাঠানোর কথা নিশ্চিত করেছে যুক্তরাজ্য সরকার।

যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেন ওয়ালেস জানান, যুক্তরাজ্যের এম২৭০ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা রাশিয়ার আগ্রাসন থেকে ইউক্রেনকে আত্মরক্ষায় সাহায্য করবে। ইউক্রেনে কতটি দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পাঠাচ্ছে, যুক্তরাজ্য সরকার এখন পর্যন্ত তা না জানালেও প্রাথমিকভাবে তিনটি ক্ষেপণাস্ত্র পাঠানোর কথা জানিয়েছে বিবিসি। গত সপ্তাহে ইউক্রেনকে হাই মবিলিটি আর্টিলারি রকেট সিস্টেম (এইচআইএমএআরএস) সরবরাহের ঘোষণা দেয় যুক্তরাষ্ট্র। তাদের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে ইউক্রেনকে এম২৭০ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা দিচ্ছে যুক্তরাজ্য। আগামী কয়েক সপ্তাহ যুক্তরাজ্যে ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর সদস্যদের এই দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরিচালনার প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে বলে জানায় ব্রিটিশ সরকার।

বেন ওয়ালেস বলেন, কিয়েভে ক্ষেপণাস্ত্র পাঠানোর মাধ্যমে ইউক্রেনীয় সেনাদের জন্য প্রয়োজনীয় অস্ত্র সরবরাহের ক্ষেত্রে নেতৃস্থানীয় অবস্থানে উঠে আসবে যুক্তরাজ্য। তিনি আরো বলেন, ‘ইউক্রেনে রাশিয়ার কৌশলে যেভাবে পরিবর্তন এসেছে, সেভাবে আমাদের সাহায্যেও পরিবর্তন আবশ্যক। ’

ইউক্রেনে অস্ত্র সরবরাহকারীদের পুতিনের হুঁশিয়ারি :

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেনকে দূরপাল্লার অস্ত্র দেওয়ার বিষয়ে পশ্চিমা দেশগুলোকে কড়া সতর্কবার্তা দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ইউক্রেনে অস্ত্র সরবরাহ বন্ধ না হলে মস্কো নতুন লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানবে। তবে তিনি নির্দিষ্ট লক্ষ্যবস্তু বলতে কী বুঝিয়েছেন তা স্পষ্ট না করে বলেছেন, কিয়েভকে দূরপাল্লার অস্ত্র সরবরাহ করা হলে মস্কো ‘উপযুক্ত সিদ্ধান্ত নেবে এবং আমাদের ধ্বংসাত্মক অস্ত্র ব্যবহার করা হবে। এ ধরনের অস্ত্র আমাদের কাছে পর্যাপ্ত আছে। এসব অস্ত্র দিয়ে এমন লক্ষ্যে আঘাত হানব, যেখানে আমরা আগে আঘাত করিনি। ’ পুতিনের এসব বক্তব্য গত রবিবার রুশ সংবাদমাধ্যমে সম্প্রচার করা হয়।

এদিকে একই দিন রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে পূর্ব ইউরোপীয় দেশগুলোর সরবরাহ করা ট্যাংকসহ বিভিন্ন সাঁজোয়া যান লক্ষ্য করে হামলা চালানো হয়েছে। কিয়েভ কর্তৃপক্ষ অবশ্য বলছে, রাশিয়া যেখানে হামলা করেছে, সেটি ট্রেন মেরামত কারখানা। সেখানে কোনো অস্ত্র মজুদ ছিল না। সূত্র: এএফপি, বিবিসি

আরো পড়ুন : হাইড্রোজেন পার–অক্সাইড নিলামে; সর্বোচ্চ দর উঠল পাঁচ লাখ

Share The News

Leave a Reply

Your email address will not be published.