করোনা বিধিনিষেধ মেনে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনে অংশগ্রহণে পুলিশ মহাপরিদর্শকের অনুরোধ

জনদুর্ভোগ জাতীয় প্রচ্ছদ ভ্রমণ হ্যালোআড্ডা

পদ্মা সেতুর উদ্বোধনকে কেন্দ্র করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভায় অংশগ্রহণকারীদের করোনাভাইরাসের বিধিনিষেধ মেনে চলার অনুরোধ করেছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ৷পদ্মা সেতু উদ্বোধনের আগের দিন শুক্রবার বেলা ১১টায় মাদারীপুরের বাংলাবাজার ফেরিঘাটে প্রধানমন্ত্রীর জন-সভাস্থল পরিদর্শনে এসে আইজিপি জানান, সেতুর উদ্বোধন অনুষ্ঠান ও জনসভায় কোনো ধরনের হুমকি নেই৷ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সবগুলো শাখা সমন্বিতভাবে কাজ করছে৷

কোভিড সংক্রমণ বাড়ার প্রসঙ্গ টেনে বেনজীর বলেন, জনসভাস্থলে লাখ লাখ মানুষের সমাগম হবে৷ আমরা সম্প্রতি দেখতে পেয়েছি, সারা দেশে করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে৷এ কারণে যারা জনসভাস্থলে আসবেন করোনার যে নিরাপত্তা ও বিধিনিষেধ রয়েছে সেগুলো সবাইকে মেনে চলার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করছি৷

জনসভায় ১০ লাখ মানুষের সমাগম হতে পারে উল্লেখ করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রধান বলেন, পুলিশের কাছে এ নিয়ে কোনো থ্রেট (হুমকি) নেই৷ যদি কোনো থ্রেট থাকে তা আমরা মিটিগেশন (হ্রাস করা) করব৷ আমাদের সঙ্গে সবার ক্রমাগত গোয়েন্দা সমন্বয় আছে৷এ ছাড়া ঐতিহাসিক এই জনসভা ঘিরে প্রতিটি স্থানে আমাদের নিরাপত্তার জন্য আলাদা সিকিউরিটি ব্যবস্থা করা হয়েছে৷ এখানে জেলা পুলিশ, নৌ-পুলিশ, ট্রাফিক পুলিশ, হাইওয়ে পুলিশ আলাদাভাবে কাজ করছে৷ জনসভা শেষ হওয়া না পর্যন্ত আমরা এখানে থাকব৷

পুলিশের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ নিরাপত্তার কথা উল্লেখ করে আইজিপি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর জনসভাস্থলে দুটি সর্বাধিক প্রযুক্তির ওয়াচ টাওয়ার বসানো হয়েছে৷ যা প্রথমবারের মতো আমাদের দেশে ব্যবহার হচ্ছে৷ এই বড় ওয়াচ টাওয়ার দুটি অমেরিকা থেকে সম্প্রতি আনা হয়েছে৷ শারীরিকভাবে এখানে নিরাপত্তা ব্যবস্থা পুর্ণমূল্যায়ন করছি এবং প্রতি মুহূর্তে মূল্যায়ন করা হচ্ছে৷ আমাদের সঙ্গে গোয়েন্দা সমন্বয় রয়েছে৷ আশা করছি, দেশবাসীর সমর্থন নিয়ে আগামীকালের ঐতিহাসিক এই মুহূর্তকে উৎসবমুখর পরিবেশে উদযাপন করতে পারব৷

বেনজীর আহমেদ বলেন, সেতু মন্ত্রণালয়ের নিরাপত্তা কমিটি এখানে কাজ করছে৷ আমরা সর্বশেষ নিরাপত্তা পরিস্থিতি দেখতে এসেছি৷ জনসভাস্থলে যাওয়া-আসার পথ কেমন হবে, গাড়ি পার্কিং কেমন হবে- এসব বিষয় আমরা ট্রাফিক পরামর্শ দিয়েছি৷ এই নির্দেশনা ও বিধিনিষেধ মানলে সবার জন্য জনসভাস্থলে আসা খুবই সুবিধা হবে৷ এছাড়া রাস্তায় সাইন পোস্টিং দেওয়া আছে৷ যারা এখানে কখনও আসেননি তারাও খুব সহজে এই জনসভাস্থলে খুব সহজে প্রবেশ করতে পারবেন৷

শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীর সভাস্থল পরিদর্শনে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটলিয়নের (র‍্যাব) মহাপরিচালক (ডিজি), মাদারীপুরের পুলিশ সুপার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ), অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বিশেষ শাখা), অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (শিবচর-সার্কেল), শিবচর থানার ওসি উপস্থিত ছিলেন৷

আরো পড়ুন : ৩০ লাখ শিশু স্কুলে খাবার পানি এবং স্যানিটেশন সুবিধা পায় না

Share The News

Leave a Reply

Your email address will not be published.